সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

নিষিদ্ধ সম্পাদকীয়

এখন যৌবন যার মিছিলে যাবার তার শ্রেষ্ঠ সময়
এখন যৌবন যার যুদ্ধে যাবার তার শ্রেষ্ঠ সময় ।

মিছিলের সব হাত
                কণ্ঠ
                পা এক নয় ।
সেখানে সংসারী থাকে, সংসার বিরাগী থাকে,
কেউ আসে রাজপথে সাজাতে সংসার
কেউ আসে জ্বালিয়ে বা জ্বালাতে সংসার ।

শাশ্বত শান্তির যারা তারাও যুদ্ধে আসে
অবশ্য আসতে হয় মাঝে মধ্যে
অস্তিত্বের প্রগাঢ় আহ্বানে,
কেউ আবার যুদ্ধবাজ হয়ে যায়  মোহরের প্রিয় প্রলোভনে ।

কোনো কোনো প্রেম আছে প্রেমিককে খুনী হতে হয় ।
যদি কেউ ভালোবেসে খুনী হতে চান
তাই হয়ে যান
উৎকৃষ্ট সময় কিন্তু আজ বয়ে যায় ।

এখন যৌবন যার মিছিলে যাবার তার শ্রেষ্ঠ সময়
এখন যৌবন যার যুদ্ধে যাবার তার শ্রেষ্ঠ সময় ।



রচনাকাল - ০১/০২/১৯৬৯ ইং
বই - যে জলে আগুন জ্বলে

কবিতাটির আবৃত্তি শুনতে এখানে ক্লিক করুন।
কবিতার বিষয়: দেশাত্মবোধক কবিতা, যুদ্ধের কবিতা
অভিযোগ করুন
লেখাটি ৩৩৫৯ বার পঠিত হয়েছে।

মন্তব্য যোগ করুন

কবিতাটির উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

এখানে এপর্যন্ত ১৩টি মন্তব্য এসেছে।

  • এসব কবিতা পড়লে গায়ে শিহরণ জাগে
  • রক্তিম ০৭/০১/২০১৭
    যৌব্ন যার কবিতাই সে হয় মহিয়ান ।
  • "সেখানে সংসারী থাকে, সংসার বিরাগী থাকে,
    কেউ আসে রাজপথে সাজাতে সংসার
    কেউ আসে জ্বালিয়ে বা জ্বালাতে সংসার । "
    -এখন যৌবন যার বিয়ে করার শ্রেষ্ঠ সময় তার হতে পারে..?
  • সমশের শেখ ২৬/১২/২০১৬
    কবিতাটি পরে ভেতরটা কেমন যেন জেগে উঠল।
  • সাবিরা শাওন ২২/১২/২০১৬
    আমার প্রিয় একটা কবিতা
  • কবিতায় কবি কী সুন্দর আহবান করলেন! চমত্কার লেখনী। "এখন যৌবন যার -মিছিলে যাবার শ্রেষ্ঠ সময়, যুদ্ধে যাবার শ্রেষ্ঠ সময়।" যৌবনে মানুষের যে কত ক্ষমতা থাকে কবি তা অনুধাবন করলেন, তাই অন্যায় রুখে দেবার জন্য তরুণ, যুবাদের আহবানের মধ্য দিয়ে এ কবিতার শুরু এবং শেষ করলেন কবি। বেশ ভাল লাগলো।
  • মলয় গাঙ্গুলী ২৭/১১/২০১৬
    এ কবিতাটি আমি প্রায়ই আবৃত্তি করি।
  • অপূর্ব ! কবির লেখায় দেশ, দ্রোহ, কাল ... দুর্দান্ত লাগল ৷ শ্রদ্ধা নেবেন ৷
  • রাসেল আহাম্মেদ ২৬/১১/২০১৬
    অনবদ্য!আজীবণ অন্যায়ের বিরুদ্ধে এক দূর্লভ্য প্রাচির হয়ে থাকবে প্রিয় কবির এই কবিতা।
  • কবীর হুমায়ূন ২৬/১১/২০১৬
    শাশ্বত বাণীর চিরন্তন চেতনার ভাব
    ফুটে উঠেছে এ কবিতার শব্দের বিন্যাসে,
    কালের গভীরে হারিয়ে যাবে না কখনো
    কবি হেলাল হাফিজের 'নিষিদ্ধ সম্পাদকীয়'।
    যুগে যুগে কালে কালে রথি মহারথিগণ
    সমাজের মানুষের জীবনের বাঁধার পাহাড়
    উপড়ে ফেলার চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়েই
    কবিতার মতো দুর্দমনীয় হয়ে উঠে;
    পরিবর্তনের অমোঘ নেশায় যুদ্ধমাঠে ঝাঁপ দেয়
    সত্য সুন্দর ও সৌন্দর্যের প্রত্যাশায়;
    আর সে সময়টার উৎকৃষ্ট কাল হলো
    মানব জীবনের চমৎকৃত সময়- যৌবন কাল!
    এ যৌবন বয়সের খাচায় বন্দি নয় কখনো,
    এ যৌবন চেতনা ভেতরে জেগে উঠা প্রদীপ্ত স্পৃহা ...


    আমার পড়া অনেক ভালো কবিতার মাঝে এটি একটি।
  • অনিরুদ্ধ বুলবুল ২৫/১১/২০১৬
    কবি হিসাবে তাঁর কবিতা ও প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা কম বটে। কিন্তু এই একটি কবিতা দিয়েই কবি খ্যাতির শীর্ষে পৌঁছে যান। কবিতাটি ইতিহাস হয়ে উঠে।

    ঊনসত্তুরের অগ্নিঝরা সময়ে কবি এই কবিতাটি লিখে তা প্রকাশের জন্য তদানিন্তন 'দৈনিক পাকিস্তান' পত্রিকার সাহিত্য সম্পাদক কবি আহসান হাবিবের কাছে নিয়ে যান । সময় ও পরিস্থিতির কারণে কবি আহসান হাবিব এই কবিতা প্রকাশ করতে না পারলেও কবিকে বলেছিলেন; "তোমার এ কবিতা ছাপাতে পারলাম না বলে আমার আজীবন দুঃখ থাকবে। তবে আমি বলছি এই কবিতা লেখার পর তোমার আর কবিতা না লিখলেও চলবে।"