যুদ্ধ খেলা এক জেতা তাই চাই চাই
নিজ বল কাজে আসে ভরসা সেইটাই l
শত্তুর দূর্বল খোঁজ নাও কোথা কোথা
জয় তবে নিশ্চিৎ নেই কোনো মাথাব্যথা l
একসাথে জয় যদি পেতে চাও সবাকার
মনটাকে বড়ো করো এই ছড়া গাথা তার l


খরগোশ কচ্ছপ লড়েছিল একবার
কচ্ছপ জিতেছিল জানা আছে সবাকার l
কচ্ছপ জিতেছিল একমন গুণ তার
খরগোশ হেরেছিল মাঝপথে যতি তার l
শেষ বাঁশি বাজে নাই খরগোশ বিশ্রামে
কচ্ছপ জিতে যায় ধীরে হেঁটে অবিরামে l


গল্প শেষ নয় আরো আছে বাকি তার
খরগোশ বুঝে নেয় হার কেন হয় তার l
পুনরায় লড়তে কচ্ছপে ডাকে তাই
কচ্ছপ বীরসেনা রাজি হয় লড়াইটায় l
এবার যে দৌড় হয় খরগোশ আগে থাকে
পিছুপানে দেখে নাকো একেবারে জয় হাতে l


এখানেও শেষ নয় গল্প আরো আছে
কচ্ছপ ভেবে চলে জেতার কি চাল আছে l
নেট ঘেঁটে দিনরাত বুদ্ধি করে বার
যে যেথায় দূর্বল নিশ্চিৎ হার তার l
জেনে নেয় ভালো করে ডাহা ফেল খরগোশ
যদি আসে মাঝপথে নদী কোনো, আফশোষ l


সেইমতো পথ বেছে যায় সে তো নেচে নেচে
খরগোশ সাথে তার রেস হয় যেচে যেচে l
নদী পায় মাঝপথে রেসখানি শুরু হলে
অনেকটা গিয়ে শেষে খরগোশ অবহেলে
সাঁতার তো জানা নাই এখন যে কি উপায়
নদীতীরে বসে পড়ে খরগোশ নিরুপায় !


ধীরপায়ে কচ্ছপ নদীতীরে এসে যায়
জলে নেমে সাঁতরিয়ে ওপারেতে পৌঁছায় l
এইভাবে কচ্ছপ যুদ্ধটা জিতে যায়
খরগোশ খুশি নয় জেতার সে কায়দায় l
কচ্ছপে বলে গিয়ে, "এটা ভাই কেমন হলো
সাঁতার জানিনা বলে আমার যে হার হলো !"


কচ্ছপ বলে তারে, "শোনো ভাই মন দিয়ে
যার যেটা বল, সেটা ব্যবহার হলো গিয়ে
যুদ্ধের রণনীতি l তুমি পাও গতিঝড়
ধীরগতি আমি দেখ, সাঁতারটা নির্ভর l
মন কেন দুখী করো আরেকটা রেস হোক
দুইজন মিলেমিশে দুজনের জয় হোক l"


খরগোশ মাথামোটা বোঝে সব দেরী করে
কচ্ছপ বলে তারে, "এই আমি তোমার ঘাড়ে l"
দেয় ছুট খরগোশ একছুটে নদীধারে
কচ্ছপ জলে নামে খরগোশ তার ঘাড়ে l
দুইজন নদীপার জিতে যায় দুইজনে
এই জয় সেরা জয় মেনে নেয় খুশিমনে l


যেমনটা করেছিল অন্ধ আর খোঁড়া ভাই
পথটাকে করে জয় হাসিমুখ দুজনাই।
শুধু শুধু সবখানে লড়ে, এ ওর বিরুদ্ধে
কতো ক্ষয় হয়, শক্তি ও প্রাণ, বাজে যুদ্ধে ?
একসাথে জয় যদি পেতে চাও সবাকার
মনটাকে বড়ো করো এই ছড়া গাথা তার ll


* জীবনমুখী কবিতার আবৃত্তির জন্য