১৬.
মূল রচনা :


আজ আমার দুপুরবেলা-
নানা স্বপ্নে কাটে বেশ;
ঘরের দ্বারে নানান কাজে-
নেই বুঝি তার শেষ।
গেয়ে যে উঠি কতই সুরে-
একটু যে বসে- উঠি;
হাজার খাতার মাঝে দেখি
বালক বেলার চিঠি।
স্বপনের দোরে ঘুম ভাঙে
উঠেছি দেখি চমকে;
হাজার প্রশ্ন বুকেতে বেঁধে-
গিয়েছি একটু থমকে।
কত ভাবনা স্মৃতি পর্দায়
ভাসে ছবি শত শত;
পৃথিবীর এ সকল সুখ
চিঠি মাঝে নিবেদিত।


জীবন চলমান l মানুষের বয়স বর্ধমান l যখন মানুষ যে বয়সের থাকে, সেই বয়সের প্রাসঙ্গিক যা কাজকর্ম তা নিয়ে সে ব্যস্ত থাকে l অতীত ক্রমে পেছনে পড়ে যায় l বর্তমানকে নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ে মানুষ l হাতে থাকে কাজ, মাথায় থাকে চিন্তা, চোখে থাকে নানান স্বপ্ন, মনের সুখে মুখে নানান গানের কলি গুঞ্জরিত হয় l এইভাবে কর্মব্যস্ততায়, আনন্দে বিষাদে দিন অতিবাহিত হয়ে চলে l
কিন্তু আবার কখনো একটু অন্যরকমও হয় l চেনা নিত্যদিনের রুটিন জীবনে একটু পরিবর্তন l অতীত বর্তমানের সম্মিলন l নানা কাগজপত্র, পুরনো খাতাপত্র নাড়তে গিয়ে অকস্মাৎ হাতে এসে পড়ে এক চিলতে এক কাগজ l পিছনে ফেলে আসা সেই ছোটবেলাকার এক চিঠি l অতীত যেন এক লহমায় বর্তমানে ঢুকে পড়ে l কবি যেন বর্তমানের স্বপ্নে বিভোর ছিলেন l ছেলেবেলার চিঠি তার সেই স্বপ্ন এক চমকে ভেঙে দেয় এবং তাকে নিয়ে যায় তার শৈশবের দিনগুলিতে l তার মনে হাজার হাজার প্রশ্ন দানা বাঁধে l ছেলেবেলাকার কতো ঘটনা, সেই নিশ্চিন্ত, দায়হীন খোলামেলা আনন্দের দিনগুলি,
যেগুলো বিস্মৃতির আড়ালে চলে গিয়েছিল, সেই চিঠিতে পুঙ্খানুপুঙ্খ তার বর্ণনা রয়েছে l সেগুলি এক এক করে স্মৃতির পর্দায় ফুটে ওঠে l কবি এক অনির্বচনীয় সুখ অনুভব করেন l বয়সকালে ছেলেবেলায় ঘটে যাওয়া ঘটনার স্মৃতি যে কি সুখদায়ক, কি আনন্দদায়ক, কবি তা উপলব্ধি করেন l
জীবনের দুপুরবেলায় যখন হাজার পাতায় হাজার অভিজ্ঞতা লিপিবদ্ধ হয়ে আছে, তখন এক বিশেষ মুহূর্তে অতীত কবিকে দোলা দেয়, অনেক নতুন প্রশ্নের সম্মুখে দাঁড় করায় l অতীত বর্তমানের ঘাত প্রতিঘাতে জীবন এক সুখের অনুভব নিয়ে আসে l কবি অন্য নানা ভাবনার সাপেক্ষে অতীত ও বর্তমান অভিজ্ঞতাকে কবিতায় বাঁধতে চেয়েছেন, যেমনটা তাঁর চোখে ধরা দিয়েছে l কবিকল্পনা সুন্দর l


কবিকে জানাই আন্তরিক শুভকামনা !!!