আমি কান্না লিখি আমার সময়ে, কতো জীবন আমাকে শেষ করে!
কোনো নেশা, কোনো একলা ঘর, কোনো নোটবুক
সদা মৃত্যু বেদনা নিয়ে জাগে, আর আমি ধূলিত হই সভ্যতায় ;
মায়ার চাঁদর দেখো, অমানিশা মেঘ - মোহ
রঙ্গিণ ঝলকিত কোনো ক্লাব, বেড়ে ওঠা শরীরের তৃপ্ত ভোজ ;
ঝাকঝিক্যে চেনা অবরোধ, সারাবেলা ফ্রেণ্ড, সারা কুঠর অন্ধকার - আমাকে জানে বোকা নিঃশ্বাস
নিঃশ্বাসকে ঘুম পাড়ায় স্লিপিং ট্যাবলেট ; জাগরন আসে তবু-
নিত্য বিয়োগ, কতো প্রেম অমর সপ্তাহে
থাকা পরাধীনতা, ঘুম নেশা কাটাই ঔষধে-
অনেক মানুষ আসে আমার জীবনে, যারা প্রশ্বাস্ত হয়,
যাদের বাগানটা ভরে যায়, শুধু আমি হয়ে রই চাঁদের অমাবস্যা কেনা, নিদ্রা ফকির;
ভালো লাগে ধূসর মানুষের চিন্তা, কিছু বিয়োজনে- কোনো প্রতিফলিত হয়না হৃদয় -
সব পঁচে গেছে, শরৎ বাবুর দেবদাস যেখানে জীবন্ত অক্ষর!
এসব মানুষ, যারা জীবনের জয়গান গায় -
তারা তৃপ্ত নয়, তারা ভুল বলে - জীবনের যেটা পরিচয়!
স্বার্থক হয়, আমার মৃত্যুর পর সবকিছু -
যেমন জীবনানন্দ স্বার্থক হয় ট্রামে মরে,
ডিকিনসন একলা শেষ হয়ে, অথবা সক্রেটিস হিপোক্রিট বলে সময়ে চলে যায়!


জীবনে আমি কান্না লিখেছিলাম, ঘুমের ঘোরে বুক ব্যথার মতো -
যে জীবনে আমার শুধু ব্যথাটাই বোঝা হয়, সেখানে কারো প্রস্থান নয় ;
অমর বিদায় হোক একদিন, পৃথিবীর সবকিছু মুছে গেলাম কালিমায়
তোমরা যারা সাজাচ্ছো মিথ্যা আঙ্গিনা, তাদের জন্য বোকা শুভকামনা নাহয় বাকি থাক!