একটি কাক বসে আছে ছাদে, চিন্তায় তার নগরের অসুখ
একটি কবিতা ধীরেধীরে জন্মাচ্ছে, ছিড়ে সব নাড়ির বাধন;
উচু উচু দালানের মাঝে ডুবে রয় নোনা গল্প, সেথায় ঘুমে রয় কতো আর্তনাদ?
দূরবর্তী কাক কিংবা সুদূরবর্তী থাকা কোনো একজোড়া চোখ
মুছে ফেলে সমন্বয়ে : যদিওবা বেঁচে থাকা খুব প্রয়োজন!
একদিন সমগ্র পৃথিবীতে বসবাসরত কাকেদের সারি
সমস্ত উল্লাস তাদের কা কা আওয়াজে, আড়াল পড়ে গেলো শকুনের অস্তিত্ব ;
একদিন ধূসর বেলায় একটি কাক বেশ কান্নায় মুখরিত
যার আওয়াজ শুনতে পায় নিশ্চুপ ওপাশ ফিরে ঘুমে থাকা কয়েদী ;
একদিন অজস্র কিট উড়ে উড়ে ভ্রমন করে, এইসব পথ ঘাট ;
স্পর্শ করেনাকো শত কাক, শুধু মানুষ ছুয়ে ছুয়ে বৈরিতায় ;
একদিন সাত রংয়ে মুখরিত আঙ্গিনা, যদিওবা ধূসরতার কোনো ঠাই নেই;
এক বেলায় পরিচিত কাক দেয়ালের উপর দেয়ালে সাজায় আপন পৃথিবী -
যার পতিচ্ছবিতে শুধু মানুষের কৃত কাজ, মানুষের গড়া গোরস্তান
অথবা আমৃত্যু সাজার ন্যায় জেল, যেখানে নীরবতার সমুদ্র যেন উত্তাল;
একদিন সব কিটেরা পালিয়ে যায়, শুধু পড়ে থাকে মানুষের পর মানুষ;