জীবনের পথের আমি এক দ্বিধাগ্রস্ত পথিক, আমাকে হিসাবে পাবেনা -
আমি বেহিসাবে মিলিয়ে গেছি অন্ধকারে : অন্ধমোহ একচ্ছত্র আপন।
কতো সব আকাশে মেঘ, ঝড়বৃষ্টি অথবা নাই থাকলো সারাদিন আগুন পোঁড়া রোধ ;
যারা নিজেকে জ্বালাতে জানে, তারা কুঁড়ে নেয় স্বর্ণ পদক ;
বোকা দেশলাইর কোনো কাঠি হয়ে ভিজে আছি, এখন আর জ্বলেনা কিছুই!
দীর্ঘশ্বাস বয় একান্ত, যদিওবা বাতাস রইলো ধুলোর শরীরে
বড় শ্বাস বিশ্বাস হারায়, সৌন্দর্য পাওয়া ছোট থেকে বড় কালে সবি ললাটীয় রেখা;
অতিউত্তর আমি জীবস্ম স্মৃতিতে, মাঝেমাঝে মনে হয়,
আমি জগতের সবচেয়ে বেশী পুরনো নিরাশবাদী!
কতো আলো ভরা রাতে অন্ধ ঘরে বসে থাকি,
কতো চেনা উৎসবে নিজের ছায়ায় নিজেকে ঢাকি;
কলির সন্ধা পুরনো হয়ে, হয়ে যায় অমলিন
শুধু আমি বিলীন কালো স্বপ্ন ঘেরা অন্ধকারে ;
এখন আর ইচ্ছে হয়না কিছুই , কবিতার শব্দ গুলো হয়না উচ্ছল প্রাণবন্ত -
এলোমেলো গাঁথায়, নিজস্য বিরহ পাতায়, শুষ্ক শোভা যার, রসকষ হীন!