এক অতি সুদক্ষ কারিগর-চিত্রকর
সৃজিলেন অতি সুক্ষ্ম কলম
প্রাণের মাঝে নিখুত আঁচড়ে এঁকে দিলেন
ভালবাসার জেনেটিক মানচিত্র
অনাদিকাল হতে এ মানচিত্রে ভর করে
হেঁঁটে চলেছে এ ধরণীর প্রাণ-প্রজন্মগুলো  
সময়ের পথ ধরে অবিরাম-অবিরত৷


ভালবাসায় বিগলিত ছোট্ট পাখিযুগল
সব সামর্থ্য ঢেলে খুঁজে আনে খড়, তৃণলতা
ধীরে ধীরে গড়ে তোলে বাসা অতি যতনে
মা পাখি ডিম পাড়ে, ডিমে দেয় তা
জন্ম নেয় ভ্রুণ, অতঃপর পাখির ছানা
পাখিযুগলের পরম আদর মমতায়
বড় হয় নতুন প্রজন্ম-পাখি৷


এক মহান সত্তার সুনিপুণ হাতে গড়া
ভালবাসার অলৌকিক জেনেটিক মানচিত্র
একই নিয়ম, একই গন্তব্য এ নকশার
অতি ক্ষুদ্র প্রাণী, পোকামাকড়, পিপীলিকা
পশুপাখি, যন্তু-জানোয়ার, বুদ্ধিমান মানুষ
এ ধরায় সকল প্রাণের গভীরে
গেঁথে রাখা ভালবাসার কুশলী বীজ
প্রণয়াকূল প্রাণ, প্রাণ হতে ভ্রুণ, শিশু
তারপর পরিণত প্রাণ
এ মানচিত্রে লুকিয়ে আছে
প্রাণের প্রজন্ম টিকে থাকার রহস্য৷


ফিরোজ, ১৩/০৬/২০১৬, চট্টগ্রাম