রক্ত দেখে ভয় নয়, জয়ের ধ্বনি শুনেছি ',নির্ভয়।
চোখে স্বপ্ন, স্বাধীন বাংলা আমার,
মুখে মা -মা বলে ডাকিব আবার।
চোখের জল মুছে বোবা চিৎকারে,
নির্ঘুম কত রাত জাগা আহারে।


প্রভাত সাজিবে সবুজের মাঝে লাল ',পতাকা,
সুর্য উঠিবে কোন প্রভাতে ',লালে লাল বাংলার মৃত্তিকা।
ঘর হারা বাঙ্গালী 'বাংলাকে নাহি ছাড়ি,
বাংলা যে আমার মায়ের শাড়ি।
মায়ে জড়িয়ে রেখেছে মাটি শত কষ্ট ভুলি,
লাল রক্ত বহে ',পদ্মা, মেঘনা, যমুনা, কর্নফুলী।
কৃষকের হাসি, রাখালের বাশি,
মাঠ ভরা ফসল রাশি রাশি।


একটি বুলেটে ভেঙ্গে দেয় সব স্বপ্ন গুলি,
বাংলার লাগি শত শত বার দেই জীবন ভলি।
বাংলা আমার ' মা ',মা ওগো মা,
তোমার সন্তানেরা মরেনা,
কারন বাংলা তোমার,তুমি বাংলার মা।


শুকুনের জিহ্বায় মাংসের স্বাদ রক্ত নিয়ে করে খেলা,
বাংলার বুকে রক্তের দাগ কেটেছে বেলা -অবেলা।
বুলেটের পর বুলেট হেনেছে, পরেছে কালো হাতের থাবা,
তবুও তারা শান্ত হয়নি, মেরেছে বৃদ্ধ বাবা।
বোনের দেহে কেটেছে কালো দাগ, বিবেক আচড়ে মারি,
মনুষ্যত্বের সাথে করেছে আড়ি,
কুকুরের সাম্য রাজাকার তোরা, কত খাবি মাংস ছিড়ি ছিড়ি ,
৩০ লক্ষ্য বাঙ্গালীর জীবন নিয়েছিস তোরা কাড়ি।


সংক্ষিপ্ত