একদিন হেঁটে যাব নদীর কিনার ধরে
বেহুলার মত উজানের দিকে;
জীর্ণ কুটিরে রয়েছে বসে যেথা
যোগী এক নক্ষত্রের সন্ধানে!
ছাই ভস্ম ফেলে আমিও তাহার মত
চেয়ে রব আকাশের পানে;
খুঁজিব তাহারে একবার এসে ছিল
যে ভুল করে ধবল কপোতের রূপধরে
তারপর আহা! বেদের তীরের
নিশানা হয়ে গিয়েছে চলে অনন্তে
রক্তের দাগ রেখে আঁধারের বুকে!
সরু চাঁদ হাসে ধূসর মেঘের ফাঁকে
জীর্ণ বসন বেশিত আমাকে দেখে!
মূঢ়ের বিমূর্ত মূর্তি আমি
হেঁটে যাই নদীর কিনার ধরে
নবীন কোনোও নক্ষত্রের সন্ধানে!