গভীর গহীনে প্রোথিত শিকড়    
রুক্ষ মাটিতেও রয়েছো অনড়
           মানুষের চোখে নগণ্য, হে বৃক্ষ!
জীবন্ত হয়েও হয়ে আছো জড়  
এক কোনে থাক হয়ে জড়-সড়
           চুপচাপ দেখ অসীম অন্তঃরীক্ষ।


বর্ষায় সাজো সবুজ পাতায়      
চৈত্র বাতাস কেড়ে নিয়ে যায়
         বার বার মরেও, জীবন কর শুরু।
সাজো যখনই লাল-নীল ফুলে  
অচেনা পথিক নিয়ে যায় তুলে
        দেখে না তোমার ব্যাথায় কুঞ্চিত ভুরু।


পরিণত ফল ভোলায় গন্ধে-রসে  
প্রলোভনে তার পাখি এসে বসে
       শোনায় কত  মিষ্টি মধুর কলতান!
অতঃপর রসনা পূর্ণ হলে  
দুরের পাখি দূরে যায় চলে
         তুমি থাক নীরব তেমনি অম্লান।


তুমি কি তবে আসলেই নিঃস্প্রাণ?
নেই কোন ব্যাথা, নেই অভিমান?
         শুধুই সংবরণে হয়েছো অভিজ্ঞ!
না কি কষ্ট আছে, শুধু নেই ভাষা  
মনের গহীনে পুষে রাখ আশা
         এ কেমন জীবন তোমার  বৃক্ষ?