একজন প্রকাশকের সাথে কথা হলো
আমার একটা লেখা ছাপাবে।
সে হোক; ছড়া কবিতা প্রবন্ধ
রম্য রসালো জ্ঞানগর্ভ
সহজ কিম্বা দুর্বোধ্য।
যে কোন কিছু।
মানে কিছু একটা হলেই হলো।
দু-একটা ভুল থাকলেও
এমন কিছু যায় আসেনা।
কিন্তু;
দ্রোহের ছবি আঁকা যাবে না।
মিছিল মিটিং চিৎকার হুংকার
থাকবেনা!
ভালোবাসার কদম থাক
শীৎকার থাক
প্রেয়সীর লাজুক মুখ আর
ভেজা চুল থাক।
কর্ষণ থাকলেও মেনে নেয়া যায়
ধর্ষন মানা যাবেনা।
রক্তে ভেসে যাক মখমল চাঁদর
কিম্বা পিচঢালা পথ।
তবুও লেখায় থাকবে আনন্দরথ।
হাজারো প্রাণ পুড়ে করে খাক
সময়ের দগ্ধ সিগারেট।
রক্তজলে লাল হোক
নাফ কিম্বা বুড়িগঙ্গা নদী
প্রতিহিংসায় পুড়ে খাক হোক
ঘর ও জমিন।
সম্ভ্রম যাক
সন্তান যাক
স্বামী সহোদর যাক
মানসিক ভারসাম্য যাক
স্বাধীন মানচিত্রটাও চলে যাক!
লেখার মাঝে শুধু বসন্তটা থাক।
বন্যার জলে ভেসে যায়
হুমায়ুনের সংসার।
ত্রানের টাকা মেরে খায় শুয়োর
সঠিক বিতরণ ঘোষনায় সরকার।
গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র!
গণতন্ত্র নিয়ে কথা বলতে হবে।
মানবতা গুমড়ে কাঁদুক পর্দার আড়ালে।
গণতন্ত্রের অট্টহাসি কালি আর কাগজে।