প্রতিদিন আমায় বিঁধত তার ঐ দুই চোখের তীর,  
প্রেমের উনুনে হাল্কা আঁচে তাই জমে হতাম ক্ষীর।      
কল্পনার মায়াবী আকাশে মেলতাম রঙীন ডানা,        
তাকে চিন্তা করে হয়ে যেতাম আহ্লাদে আটখানা।          
তার মধ্যে পেতাম রূপ-রস-গন্ধের অশেষ ভান্ডার,  
বুকের অভ্যন্তরে দিনরাত বাজতো কোমল গান্ধার।    
কিন্তু আজকাল ভালোবাসা বড় স্বার্থপর-একরোখা,  
চারিদিকে শুধু মিথ্যা প্রতিশ্রুতি,নাটক আর ধোঁকা।  
আমি ছিলাম সাইলেন্ট আর তার ভাইব্রেশন মোড,    
লুকিয়ে স্ক্যান করেছিলাম তার শরীরের বারকোড।  
প্রেমের অনুপাতে অপর্যাপ্ত ছিল আমার হ্রদয়ের র‍্যাম,
ক্যাশে ফাইল আর কুকি জমে লাগতো ট্রাফিকজ্যাম।
তার সঙ্গে দেখা করতে যেতে প্রায়ই হয়ে যেত লেইট,
আমাকে যে পার করতে হতো হাইওয়ের টোলগেইট।
দেরী দেখে পেয়ে আমার চেয়ে শক্তিশালী ওয়াইফাই,
সে আমাকে ডিসকানেক্ট করে গাইলো তার সাফাই।  
"আমি তোমাকে একটা কথা সোজাসুজি বলতে চাই,  
আজ থেকে তোমার সঙ্গে আমার কোন সম্পর্ক নাই।"
তারপরে এক অভিশপ্ত দিনে আমার বাজলো সানাই,
মাথায় টোপর-কপালে চন্দন দিয়ে সাজলাম কানাই।
সেদিন থেকে আজও সাফ করছি দাম্পত্যের নর্দমা,
সকালবিকাল জপ করছি ভরণপোষণের হলফনামা।
অবশেষে বলি ভালোবাসা আজ দেখেনা কারো মন,  
দেখে শুধু শাড়ির দামের স্টিকার আর গয়নার ওজন।