এক পুকুরের আত্মকথা ভাবছি বসে--
"মাছরাঙা, বক, ফড়িং ঘাসে খুব আলসে
পানকৌড়ি ডুব দিয়ে বেশ পুন্য কুড়ায়
রায় গিন্নি ঘাটের হাওয়ায় শরীর জুড়ায়
রুই,কাতলা,মৃগেল যখন জটলা করে
ঠিক তখুনি খিলতোলা কালবোসের ঘরে।
শামুক, কেঁচো,পাতাঝাঁঝির আলিঙ্গনেই
ল্যাংটা ভোলা সাঁতরে চলে আপনমনেই
হঠাৎ সেদিন শুনতে পেলো মরতে হবে
জল শুকিয়ে পেল্লায় এক মল উঠবে।
যোগসাজশে হিসেব সেরে চার জাঁহাবাজ
তালপুকুরে হল্লা তুলে পালটালো সাজ
পুকুর কিন্তু তখনও তেমন জল থৈথৈ
শরীর মৃতই না হয় তবু মনটা মা ভৈ
রোজ লেখে সে আত্মকথন খাতায় তেলচিটে
ফের কোনোদিন ছড়িয়ে পরে ফুলকি ছিঁটে!
আবার তবে নতুন জন্ম আগের শরীর
জাহাজডুবির চার জাঁহাবাজ  বৈতরণীর"।