আমার চুল নেই বড়, কাঁধেও নেই সেই ঝোলা,
আকসার আমি এক; হয়েছি যে কবি চাঁছাছোলা ।
আমি বুঝিনা তোমাদের কিসে মন্দ; কিসে যে ভালা,
রস কসও তো জানিনা কিছুই, শুধু লেখি খোলামেলা ।
না শুনলে আমার কবিতা, তুমি কানে লাগাও তালা,
নইলে হয়তো তোমার; গায়ে যে ধরবে বিষম জ্বালা !
গোস্বা হয়ে বলবে তখন; এ কি শোনালেরে শালা !


রোমাঞ্চ করতে মানো না কেউ; কে ফুপু কে খালা,
যত প্রেমই কর না কেন, বল এই করছি পহেলা !
তোমাদের মনরঞ্জনের জন্য, আমি নই কোন কবিওয়ালা,
যৌনতার সুড়সুড়ি দিয়ে; হবোনা বইবেচা টাকাওয়ালা ।  
জানি পাবো না কোন পুরষ্কার; পাবো নাকো ফুলের মালা,
আমি করেছি যে শুরু; তোমাদের যত কুকর্ম লেখার পালা ।
অসিতে হবেনা কাজ আর, তাই মসিকে রেখেছি খোলা....


একাকী পার্কে বসে নিরবে ভাবতে; কাটাবো যে একবেলা,  
নির্লজ্জ কুকুর যুগলদের কীর্তি দেখে; যায়না ঐ দিকে চলা।
তোমাদের জন্য কবিতা লেখে; কবরে পোহাবো না ঝামেলা,
দিনে দিনেই যদি বাড়ে সমাজের; এমন যত লীলা খেলা,
নষ্ট হয়ে কেন রে সবাই; তবে আবার থাকতে চাস ভালা ?  
আমার বড় কষ্ট লাগে; দেখে তোদের এসব ছোলাকলা ।
থাকতে পারিনা রে কিছুতেই আর; মুখে দিয়ে বীচি কলা,
তাইতো, অগত্যায় আজ আমি হয়েছি এক কবি চাঁছাছোলা ।।  


রচনাকালঃ- ২০১৫ ।