( প্রিয় কবি মনোয়ারুল আলম সাহেবের গত ১১/০৭/২০১৮ তারিখে লেখা " হে যুবক" কবিতার প্রতি উত্তরে লেখা এই কবিতা এবং এই কবিতাটি তাকেই করলাম উৎসর্গ করলাম )


হ্যাঁ আমিই সেই যুবক.......
আমিই সেই হতভাগ্য !
হাত দুটি পেছনে বাঁধা আমার
বুকে ঝাড়রা গুলিবিদ্ধ ।  
এভাবেই মরি এখন আমি বেঘোরে
আর ওভাবে তারা করছে আইন সিদ্ধ ।

হ্যাঁ আমি সেই যুবক
তাই আজ কাল আমায় পাওয়া যায়.....।
মুখ থুবড়ে পরে থাকতে ক্ষেতে-
খামারে বনে-জঙ্গলে ডোবা-নালায় ।
না এমনি এমনি না আমি দুস্কৃতিকারী,
আমি বন্দুকধারী, তাই মরেছি যুদ্ধে
কত শত অভিযোগ উঠছে অবিরাম
এখন আমারই বিরুদ্ধে..........।


তাদের অঙ্গিকার ছিল আমায় করে দেবে
কর্ম সংস্থান ঘুচে দেবে বেকারত্ব ।
এখন ঐ রাজ প্রাসাদে বিলাস বৈভবের মাঝে
বড় বিরক্তিকর আমার চিন্তায় থাকতে মত্ত ।  
অথচ একদা তারা আমারই শক্তির মদ-
মদ্যতায় গিয়ে ক্ষমতায় পেয়েছে সিংহাসন।
সেই শক্তি পাছে ব্যুমেরাং হবে ভেবে
তারা উদ্যত করতে এখন আমারই প্রানহনন।
  
আমি যে জানি না সাদাকে কিভাবে  
বলতে হয় কালো ।
এও জানি না যে ঐ কালোকে কিভাবে  
বলতে হয় ভালো ।
তাইতো আমার এই পরিণতি ।
আমার জ্ঞাতিরাই যদি হয় আত্মঘাতি !  
কি আর করবো বল ?
জন্মেছি যখন এই দেশে !  
তাই এমন পরিণতকেই আমি এখন
অবলীলায় নিয়েছে গো ভালবেসে......।

দখলদারদের হটিয়েছিলাম আমরা
বাপ-চাচাদের তরতাজা রক্ত দিয়ে ।
কি আর করবো বল ? স্বজাতির কর্তারা যদি,
হোলি খেলে তাদেরই প্রজন্মের রক্ত নিয়ে ।
আমার বাদ বাকী আছে যত ভাই-ভগ্নী
তারা বিকিয়ে দিয়ে তাদের তেজ-অগ্নি.....।
যদি থাকে সদা নির্লিপ্ত
আমার মত অভাগা কটা মরবেই তো
ওনাদের কর্ম দেখে একটু হলেই ক্ষিপ্ত ।
না তবে তোমরাও বাঁচবে না !  
আজ তবু মোর লাশের পাশে কাঁদার
মানুষ আছে তোমাদের তাও থাকবেনা......    
১১/০৭/২০১৮ বুধবার ৬.৩৫ মিঃ