আকাশভরা তারার তলে
পৃথিবীর এ দূর্বাদলে
          তুমি তুষার হয়ে ঝর,
কচি গাছের শীর্ণডালে
মৌ হয়ে সব ফুলে ফুলে
           তোমার সুধা উজাড় কর।


শুনে তোমার চরণধ্বনি
দেবীরূপী ঐ আগমনী
           কাঁপিয়া উঠুক পাথার,
দিপ্তীময়ী ও চোখ-ঝলকে
বিনির্গিত অগ্নি-ফলকে
           মুছিয়া যাক সব আঁধার।


আসিয়া ধর পাপের ধরা
ঘুচিয়া দাও স্বপন-ক্ষরা
          মাতুক সবাই সুখে,
কাঁদাইতেছে জীবন যারা
শুনুক সেই শয়তানেরা
         হৃদয়বানী তব মুখে।


গ্রাসিদের দাও গ্রাসের টোপ
শিরায় হানো গরল কোপ
           নিদ্রা যাক রক্তপিপাষুরা,
পুড়িয়া দাও জজ্ঞাল-ঝোপ
হোক অনিষ্টকারী দের লোপ
           বাঁচুক সকল মানুষেরা।


দু'হাতে আনো দু'অংশ
একেতে সৃষ্টি একেতে ধ্বংস
          আসো গো আপন ঘরে,
চেয়ে দেখো মুক্ত নয়নে
এত কষ্টের সাজানো বাগানে
          দুঃখি সন্তানেরা যে মরে।


কাছে তাদের ডাক
ক্রোড়ে লুকায়ে রাখ
         কাঁদাইয়ো না আর,
চিত্তের ব্যাথিত রবে
অক্ষি যে গো ভাঙ্গিয়া যাবে
          আসিবে বানের ফুয়ার।।