মুক্তি চায়---
শারীরিক স্বাধীনতার পর
বুকের ভেতর
একটা সংজ্ঞাহীন কিছু,
এ শরীর যেন ইংরেজ
ইন্দ্রিয়দের লোভ-ত্যাজ
সে পছন্দ করে না-- রাসায়নিক সম্পর্ক;
একা পেলে একহাত নেয়
আমার খোলা জানালার পাশে
ফোটা-- অভিজ্ঞ মতামত
আর হিসেবের পর পড়ে থাকা গল্পটা।
বেশ উপযুক্ত ফার্নেস!
আগুন জোগাড় হয়
বিক্রিয়ক জোগাড় হয়
তার আগ্রহে হিমালয়ও গলে যায়,
বরফ না মন?--- মুক্তি চায়।
কোষে শ্বসনের কিছুটা অভাব
কিছুটা গরম খাদ্যের
প্রাণের অনুভূতি তত্ত্বকে
একটু বিপদে ফেলে দেয়;
মাথা বেশি অভিকর্ষজ পায়?
তা ঠিক-- পায়ের পেশি ঝামেলায়
মুক্তি চায়।
বাতাসে ঘনিষ্ঠ হওয়ার মানসিকতা,
এই লালাভর্তি জিভ
এই দাঁতে খাদ্যের সারাংশ
সে পছন্দ করে না;
পুলিশে না পারলে ডাকাত দেখায়।
তার স্বর্গীয় চালচলন
শত্রু, সামাজিকতা ইত্যাদির ভয়ে,
তার জন্মগত স্পর্ধা
'কি আর হবে?' পর্যায়ের সংশয়ে
কেঁচোর মত দিন কাটায়;
মুক্তি চায়
যত শারীরিক
     সামাজিক
উপন্যাসের সদস্য পদ থেকে
মনুষত্বের ঘন চিহ্ন--- রেখে।।