কাঠফাটা রোদ চুপ দুপুরে
নিঝুম বেলার খেলার সাথী,
আঁধার রাতে আলোর দিশা
তুই যে আমার জোনাক বাতি ।


সাতরঙা  রামধনু আমার
তুই ধানের শীষে হাওয়ার দোলন,
রাত জোছনায় মায়াবিনী
আমার বিনোদিনী তুই আলোড়ন।


ছুট্টে তোকে জাপটে ধরা
আমার হলুদ প্রজাপতি,
সাগরপারের নির্জনে নীল
হাওয়ায় ওড়া আলুথালু আঁচল নীলে তুই।


তুই যে আমার বন্ধু সুজন
ভর দুপুরের আমমাখা কুল,
তুই যে আমার ছোঁচা নোলায়
নাল গোড়ানো চাটনি তেঁতুল।


নীরব দুপুর সরব করে
আলসেতে ওই ছাদের কোণে,
তোকে নিয়ে বকুম বকুম
সুখ খুঁটে যাই আমরা দোঁহে ।


তুই যে আমার আলোর নাচন
সাঁজবাতি তুই তুলসিতলার,
দেই যে আমি পানকৌড়ি ডুব  
জানিনা কোন অতল তলে ...


দিনের আলো,সাঁঝের তারা
নিশীথিনী নিঝুমে তুই কল্লোলিনী ঝর্ণাধারা,
খুঁজে নিতে আপন তোরে
ছুটেই চলি দিশাহারা ।


তুই যে আমার জীবন ওরে
মরণ বেলার সাথীরে তুই,
জমে ওঠা সব ধুলো মনের -
তোর বৃষ্টি জলেই আমি যে ধুই ।
__________________
অমিতাভ (৪.৫.১৮) বাড়ি, দুপুর ২ - ৪০