বড় ইচ্ছে ছিল, কোন এক চাঁদনী রাতে
একমালাই নৌকায় তোমার কোলে মাথা রেখে
চাঁদের রুপালী আলোয় ভেসে যাওয়া নদী দেখব।
মাঝি ভাটিয়ালী গাইবে করুন সুরে,
আর ঢেউয়ের ছলাৎছলাৎ শব্দ বাজনা বাজাবে।

অথবা, কোন এক কনকনে শীতের রাতে
অজানা এক রেলস্টেশনের ওয়েটিং রুমে হাতে গরম চায়ের পেয়ালা নিয়ে
তোমার সাথে কথা বলে কাটিয়ে দেব সারারাত।
বাহিরের নিস্তব্ধ রাত চিড়ে কখনো ভেসে আসবে
ভয়জাগানো রাতপাখিদের ডাক, কখনো ট্রেনের হুইসেল।

কিংবা, বর্ষনমুখর কোন এক রাতে
নদীর ধারে বেধে রাখা লঞ্চটার্মিনালের অন্ধকারে বসে
তোমার সাথে সকালের লঞ্চের অপেক্ষা করব।
বৃষ্টির ঝনঝন শব্দ আমাদের কথা বলতে দিবেনা, কিন্তু
হাতে হাত রেখে আমরা নির্বাক কথা বলে যাবো।

ইচ্ছেগুলো সব স্বপ্নের মতন, জানি পুরন হবার নয়।
সময়গুলো সব ভেসে চলে,  বড় ক্ষুদ্র এ জীবন হায়।