আশামণি অভিমানী
আপন রাজ্যের রাণী।
বাবা মায়ের নয়নমণি
লক্ষী মুখের বাণী।


চটপটে বুদ্ধিমতী
মান অভিমান বেশী।
মনকাড়া গুণবতী
মিষ্টি ঠোঁটের হাঁসি।


মানে না সে কারও বারণ
শোনে না যে কোনো কথা।
নিজের জেদই জীবন মরণ
স্বভাবে অপরাজিতা।


আত্মকথায় তার শেষ কথা
থাকুক যতই বাধা।
অকারণে দেয়না ব্যথা    
মনটা সাদাসিধা।      


উদার তাহার চিন্তা চেতনা
সাধারণ জীবনযাপন।
আছে হাজার সুপ্ত যাতনা
লালিত শত স্বপন।


পড়ার সময় পড়তে বসে
খাওয়ার সময় খায়।
থাকে সদা মায়ের পাশে
বাইরে নাহি যায়।


সত্যপথে চলে সে
মিথ্যা কম বলে।
একটু আঘাত পেলে সে
হৃদ দহনে জ্বলে।  


নেইকো তার অঢেল চাহিদা
নেই যে তেমন দাবি।
নিজে মেটায় নিজের ক্ষুধা
নিজেই নিজের চাবি।