আঘাত করিনি, ভাঙ্গিনিও ঘর
শুধু ঘুরে বেড়িয়েছিলেম
খাবারের খোঁজে।
আনারসের ভেতর বারুদ ভরানো
অবলা প্রানিটা কি বোঝে পাষান
হৃদয়ের ছলাকলা।


একদিকে পৃথিবীতে আসতে
চাওয়া সেই ছোট্ট প্রানের ক্ষুধার
জ্বালা অন্যদিকে মাতৃ হৃদয়ে খাবারের হাতছানিকে উপেক্ষা করতে না
পারার চরম অসহায়তাকে
সামনে রেখে স্রষ্টার শ্রেষ্ঠ জীবের মানবতাহীন ফাঁদে পা দিতে হয়তো একবারও ভাবেনি সেই
অবলা জীবটি।


হঠাৎ জ্বললো উদরে বারুদের নির্মম আগুন এ আগুন ক্ষুধার নয়,ধ্বংসের!
নিরীহের রক্তে হোলি খেলার এ কোন মানবীয় আস্ফালন?


সেই নিষ্প্রাণ প্রানদুটো আজ অমরত্বের দেশে চির নিদ্রায় যেখানে
কেউ দেবেনা বারুদ মাখানো
খাবার অলীক ভালোবাসায়।

অথচ,যে নতুন প্রান আসতে চলেছিল এ  সুন্দর সবুজ পৃথিবীতে আজ
বারবার প্রশ্ন করে! মাগো,কোন
অপরাধে এ নির্মম নিষ্ঠুর পরিণতি?


বন্ধ হোক অবলা প্রাণী হত্যার এ উন্মাদনা
দ্বেষ হিংসার দানবীয় বেষ্টনী ভেদে সৃষ্টি হোক এক সুন্দর সবুজ পৃথিবীর
দ্বিধাদ্বন্দ দ্বেষ হীন পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মাতৃবাসল্যে ভরা মনুষ্যত্বে উড্ডীন জাগতিক এ মহাবিশ্বের হোক এক সুন্দর সজীব মনুষ্যত্বের মহা উত্থান।