কে করলে এমন ধারা মাথার উপর ঝুলিয়ে খাঁড়া
সাইনবোর্ডটা লাগিয়ে গেলে কিসের সার্থে, সর্বনাশের পরম্পরা
ডাইনে নোটিশ, বাঁয়ে নোটিশ, মানব জনম দিশেহারা
ভিতের নিচে উইয়ের ঢিপি, ভরল কিগো তোমার ঘড়া !
কান্না দেখি একই রকম, হাসিতেও নেই তেমন ফারাক
খাঁচাতেও নেই কম বেশী হাড়, মাস মজ্জার রং ও এক  
প্রাণ বায়ুর নেই কোন রং, শরীর ক্রিয়ায় নেই তফাৎ
কি কারনে এমন কান্ড, নেশার ঘোরে সত্য বরবাদ।    


কে করলে এমন কান্ড, উপুড় করে বিষের ভান্ড
ছড়িয়ে গেলে ভুবন জুড়ে, মানবে দিলে চরম দন্ড    
উষর ভূমে আসার জেরে, জন্মেই শিশু বর্ম পরে  
বর্মই কি তার রক্ষা কবচ ! উত্তর দেবে কে তাহারে    
হাজার ফিরিস্তির রকম ফেরে বেকসুর মন পড়ছে পাঁকে    
চলার পথে অদেখা বেড়ী ভাবের দোলার ঘুর্ণিপাকে  
দানা পানিতে নেই তফাৎ, ক্ষুধা তৃষ্ণায় একই দশা
তবু কিভাবে জড়ালে জালে মানব সভ্যতায় যা সর্বনাশা !


মায়ের বুকে আশ্রয় পেলে, কান্না থামে জগত জুড়ে    
এ সত্য গল্প নয়, মেলেনা ঐ কল্পলোক মন্থন করে  
বেড়ে ওঠা এক মাটিতেই, দম ফুরালে সবাই মড়া
কেউ রাখেনা আগলে তারে ভাগা ভাগির দিয়ে বেড়া
একই স্রষ্টা, একই গোলোক,  সৃষ্টিতেও তার একই ধরণ  
সেই ধরণে ছাপ লাগিয়ে করলে তারই মান হরণ !
কিসের লাভে এমন কর্ম ?  ঠুনকো জিনিষে দিন যাপন    
জানলে মানুষ মানবে নাগো, আলগা তখন হবেই বাঁধন।


যেদিন দুলবে ধরা, পড়বে ধসে সকল বেড়া, মুক্ত হবে মন
আঁধার দুয়ার ভরবে আলোয় হৃদয় তটে আসবে শুভক্ষণ
আচার বিচার জপের মালা এক পুঁটলিতে হবে বাঁধা
ভেসে যাবে অকুল স্রোতে শেষ হবে সকল ধাঁধা  
স্রষ্ঠা সেদিন হাসবে আবার, সব বিলিয়ে জিত হবে তার
হাসবে আকাশ, হরিত ক্ষেত্র, ধর্ম নয়, বইবে স্রোত মানবতার ।  


সোনারপুর
৪/০১/২০১৯