নিজেরে লুকায়ে রেখেছ যে তুমি কোন্‌ ঘনান্ধকারে!
আলো পশিবার পথটি যেন কে দিয়েছে রুদ্ধ করে।
যতবার কবি হেনেছে আঘাত তোমার বন্ধ দ্বারে,
বেরিয়েছ তুমি ব্রহ্ম তেজে সবকিছু গেছে পুড়ে।
করেছ বিচার, পরখ করেছ নিজের ক্ষমতা বলে,
আরোপিত যত নিয়ম-নীতি সবই গিয়েছে টলে।
মানুষ হিসাবে জন্মেছ তুমি, বুঝেছ তোমার মানে,
সব জীবে আছে সমানাধিকার প্রকৃতির দেওয়া দানে।
তবু কেন তুমি রেখে দিলে সবে তোমার চরণ তলে?
বঞ্চিত হল কত শত জীব তোমার বুদ্ধি বলে।
তবে কি আবার ফুরালো সে তেজ পশিলে বদ্ধ ঘরে!
কতবার কবি জ্বালাবে প্রদীপ আলো দেখাবার তরে?