আজ এই 'শঙ্খনীল কারাগারে'র চারদেয়ালের বাইরে অফুরান্ত 'শ্রাবণ মেঘের দিন'।
কল্পনায় আমার 'দুই দুয়ারী' খুলে বসে আছি, বৃষ্টির শীতল জলের ছোঁয়া অনুভব করছি।
হাজারো কন্ঠের কোলাহল শুনছি, অথচ 'কোথাও কেউ নেই'!
তারা জ্বলা 'নক্ষত্রের রাত' বড় উদাসী।
আমার কল্পনায় চাঁদ, তারা, নদী, ফুল, পাখি।
'দারুচিনি দ্বীপে' চাঁদনী রাতে, হাতে হাত ধরে রূপার সাথে ঘুরে বেড়ানোর  বড় ইচ্ছে ছিলো।
রূপা 'এবং হিমু', অনন্ত অপেক্ষার দিন শেষে শুধু দুজনে।
বড় করুণ সুরে রূপা একদিন গেয়েছিলো 'আমার আছে জল'।
নোনা জলের শ্রোতধারা ওর গাল বেয়ে, অন্ধকারে কংক্রিটের ছাদ চুঁইয়ে-
একফোঁটা আমার বন্ধ চোখের পাতায় পড়তেই ঘোর কেটে গেলো। 'তিথির নীল তোয়ালে' খানা দিয়ে আলতো করে সে জল মুছে নিলাম। মনে পড়লো 'আজ রবিবার', আজ 'নন্দিত নরকে' বিসর্জনের উৎসব।
আকাশ কালো হয়ে ঘন বৃষ্টি, এরই মধ্যে হাজারো আলোর প্রদীপ জ্বলজ্বল করে জ্বলছে।
আকাশ ভরা ঝাঁকে ঝাঁকে আলোর পোকা।
রূপা গাইছে, 'আগুনের পরশমণি ছোঁয়াও প্রাণে'!
আর আমি, দু হাতে বাতাসের স্রোত কেটে, একজন 'ঘেঁটু পুত্র কমলাকে' খুঁজে চলেছি।
যার হাতে ধরা আলোর মশাল,
জন্ম জন্মান্তর ধরে সু-সৃষ্টি ও জাগরণের পথ দেখিয়ে চলেছে!


A tribute to the famous bengali writer, lyricist, film director Sir Humayun Ahmed.
©সুব্রত ব্রহ্ম_২০১৭
ময়মনসিংহ।