কোন এক শীতের রাতে জীবন মাঝে
আবির্ভাব সে নির্মল মনে উষ্ণ সাজে।
অচেনা অজানা পরিবেশে রূপের আভা
উন্মাদনায় মাতোয়ারা ভাঙা ঘরে চন্দ্র শোভা।


নীলাভ চোখের চাহনি আর মায়াবী মুখ
নেই সংশয়, নেই বাঁধা, অফুরন্ত শান্তির সুখ।
লাজুক মিহি ছোট ছোট কাব্যিক কথা
কোকিল সুরে কুহু কুহু লাবণ্য গাঁথা।


ফুলেল মুচকি হাসি
মুক্তা যেন রাশি রাশি।
খোঁপায় গোঁজা কাগজী জবা
লাল আঁচলে রঙ্গিন প্রভা।


দুর্গম কঠিন বহতা পথে
প্রতিজ্ঞা আমরণ একসাথে।
গুনগানে ষোলকলা পূর্ণ রমণী
মানতে নারাজ প্রিয় জননী।


অতৃপ্ত হৃদয়ে তাহার যৌতুকের ছায়া
উঁচু গলায় অশান্তির বুনন নাচিয়ে কায়া।
সময় যত সামনে গড়ায়
ভাঙনের অনল উল্লাসে ছড়ায়।


নিরুপায় অকর্মা বর
পরিবারের কথায় নড়চড়।
বছর দুয়েক বাদে অগ্রহায়ণ
সংসার বিনষ্টে চূড়ান্ত ক্ষণ।


যৌতুক নামের কলঙ্কিত কলুষ
কুঠার আঘাতে হৃদয় ফানুস।
স্বাক্ষর শেষে বঁধু অজ্ঞান যাতনা বিষে
মুকুট মাথায় মমতাময়ী বিজয়ী বেশে।