না যেন আসে আগ্রাসী তুফান
ভিটে মাটি কেড়ে নেয়া বান
আসুক বৃষ্টি অঝোর বীনা-তান
অঝোরে ঝরুক দিনমান ।


সুখের জলে ভেসে যাক
জমাটবাঁধা দুঃখ খরতাপ ।
মাঠ ঘাট প্রান্তর ভেসে যাক
ভেসে যাক মোর খড়কুঠো প্রাণ !
...
অথই জলে ডুবে যাক দূর্বা ঘাস
থৈ থৈ জলে উথলে উঠুক প্রাণের শাঁস
নদীর বুকে ডাকুক যৌবনের বান
মাঝি ছেড়ে দিক দূর অচিনের পাল !


থাক সব এমনই থাক...
পানি ফুসে উঠে করুক ফুঁসফাঁস
আমি তার বুকে দিব ঝাঁপ !
ক্ষণকাল ভেসে থাক শুধু নাক
যাক তবে বেলা বয়ে যাক !


পাতিহাঁস ভাবুক আমি এক হাঁস
যেথায় ঝাঁক বেঁধে আছে
সব শাপলা , কেওরালি শাক
ছায়া ছায়া মায়া থাক !


থাক ভেজা ভেজা আকাশ
আমি উপুড় হয়ে ভেসে
তারই পানে চেয়ে
কাটাবো অনন্তকাল !


যেথা সাগরের মত জল
নেই কিনারা নেই কোন কূল
মাঝি বায় নিঃশব্দ দাড়
নিরুদ্দেশই হবে উদ্দেশ্য যার
তার সনে ভেসে যাবার
আমার আজন্ম স্বাধ !!