ভালোবাসার নাম ধোনি
ইন্তিখাব আলম


সাত নম্বর জার্সি পরা ছেলেটি ক্যাপ্টেন কুল নামে পরিচিত,
ছেলেটা মাঠের মধ্যে আর খেলতে দেখা যাবে না।
ধোনি ধোনি, মাহি, মাহি করে হাজারো ফ্যানের চিৎকার স্টেডিয়ামের প্রান্তর থেকে ভেসে আসবে না।
ইতিহাসের পাতায় স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে সেরা ফিনিশার, সেরা উইকেট কিপার , আমাদের ক্যাপ্টেন কুল ধোনি।
প্রথম উত্থান, এপ্রিল ২০০৫, পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ১৪৮ রান , তখন বিশ্ব শুরু করল ছেলেটার খোঁজ, ছেলেটি ধোনি।
বিশ্বের ক্রিকেট প্রেমিরা জানত পারল, নতুন শর্ট
নাম হলো হেলিকপ্টার শর্ট,
ক্রিকেট প্রেমিরা হয়তো হেলিকপ্টার শর্ট আর
সে ভাবে দেখতে পাবে না।


ক্যাপ্টেন কুল এ নের্তৃত্ব এ২০০৭ এ T20 World Cup প্রথমবারের জন্য জয়ী, আমরা ভারতবাসী,
সেদিন আনন্দে ভেসে ছিলাম।
ভারতের ইতিহাসের স্বর্ণাময় অধ্যায়ের সূচনা হয়েছিল, সাল ২০১১।
২৮ বছর পর বিশ্বকাপের মুখ দেখেছিলাম।
তিন উইকেট হারিয়ে আমরা যখন চাপের মধ্যে তাড়া করছিলাম,
তখন তুমি একটি বড় ইনিংস খেলে জয় এনে দিলে,
আমাদের ঝুলিতে আরেকটা বিশ্বকাপ সংযুক্ত হল।
সেদিন সারা ভারতবাসী কেঁদেছিল, সে কান্নার মধ্যে, আনন্দ ছিল।
এরপর তোমরেই হাত ধরে ২০১৩ তে Icc Champions Trophy আমরা জয়ী হয়েছি।


প্রতিটি ভারতবাসীর ভালোবাসার একটি নাম ধোনি, একটি আবেগ।
তোমার খেলা, তোমার অধিনায়কত্ব, মাঠের মধ্যে,
বুদ্ধি দিয়ে বিপক্ষকে পরাস্ত করা, আমরা ভারতবাসী তোমায় ভুলিব না।
তুমি আমাদের দেশের নাম, বিশ্বের মধ্যে উজ্জ্বল করেছ, সম্মান এনে দিয়েছ,
আমরা ভারতবাসী, তা ভুলিব না।
স্টেডিয়ামের মাঠে ধোনি, মাহি বলে চিৎকার কুঞ্চিত হবে না, ভারতবর্ষের বুকে তোমার নাম রক্ষিত থাকবে।


ধোনি একটা ভালোবাসার নাম, স্বর্ণময় অধ্যায়ের নাম ধোনি,
আমরা তোমায় ভুলিব না।।