======================
আমি মরিনি,
আমার নিস্তব্ধ নিথর দেহটাই শুধু পড়েছিল,
আমি ছিলাম না সেখানে,
আমি তখন অযুত নিযুত সত্ত্বার,
স্পন্দিত প্রখর যৌবনের তপ্ত নিশ্বাসে,
প্রজ্জ্বলিত শিখার বিবরে জ্বলন্ত অঙ্গার।


আমার যে মৃত্যু নেই,
যে কণ্ঠ প্রতিবাদ করতে পারে,
তাকে স্তব্ধ করা যায় না।
যে চোখ রক্ত চক্ষুকে উপেক্ষা করে তাঁকাতে পারে,
তাকে উপরে ফেলা যায় না।
যে কলম রক্ত ঝরাতে পারে,
তাকে থামানো যায় না।
যে শব্দ সুপ্ত আগ্নেয়গিরির মুখে আগুন ধরাতে পারে,
তাকে রুদ্ধ করা যায় না।
মৃত্যু তাকে স্পর্শ করে না,
মৃত্যুঞ্জয়ী সে স্পর্শ আবিষ্ট করে রাখে প্রতিটি কণ্ঠ,
কথায়, আরক্ত শ্লোগানে
অগণিত দ্রোহী কবিতার ছন্দে,
জ্বলন্ত আগুনের মতো ঠিকরে পরে
ফুটন্ত যৌবনের অনির্বাণ চোখে,
অবিনাশী সে সত্ত্বা, ছড়িয়ে পরে
কাল থেকে মহাকাল, জন্ম থেকে জন্মান্তরে।


আমাকে মারতে পারেনি ওরা,
শুধু নশ্বর দেহ বীভৎস ব্যবচ্ছেদে,
মেতে উঠেছে উল্লাসে,
অবমুক্ত প্রাণ মুক্ত ডানায় মিশে গেছে শত কোটি প্রাণে।
মিশে গেছে চিন্তা, চেতনায়, ভালোবাসায়
এ মাতৃভূমির ধুলো মাটির প্রতিটি কণায়।


আমি মরিনি,
আমি এখন অজস্র আমিতে ঘিরে আছি তোমাকে।
  
=============================