শরৎ এসেছে :


শরৎ হেসেছে গাছের পাতায়
শরৎ হেসেছে ফুলে
শরৎ এসেছে গ্রাম বাংলায়
শরৎ এসেছে দুলে l


শরৎ খেলেছে কিশোরীর পায়ে
কিশোরের চোখে মুখে
শরতে আকাশ নির্মল সাদা
তুলো মেঘ তার বুকে l


নদী কলরোল জন হিন্দোল
শরতে মেতেছে ধরা
মৃদু বায়ু আসে যেন ভালোবাসে
পূর্ণ খুশির ঘরা l


পুজোর আমেজ আকাশে বাতাসে
খুশিতে নেচেছে মন
গ্রামে ও শহরে সেই এক দোলা
মেতেছে মানুষজন l


পুজো এসে গেছে :


দূরে ঐ দূরে বহু বহু দূরে সূর্য যে যায় ডুবে
আভাখানি তার ছড়িয়ে পড়েছে সারাটা আকাশ জুড়ে l
মেঘমালা ঐ হাত ধরে ধরে শূন্য আকাশে ভাসে
লালচে আভায় মেখে গেছে সব কাশবন মেঘাকাশে  l
আলো আঁধারির মায়াবী দোলায় প্রকৃতি মায়ের খেলা
ছায়াপথ জুড়ে অসীম অশেষ শূন্যপথের ভেলা l
পুজো এসে গেছে শরতের শোভা সাজিয়েছে পথ ঘাট
জীবনের গতি বাঁধন ভেঙেছে উৎসবে তল্লাট l
মানুষের ঢল বিপণি বাজারে কেনা বেচা হুল্লোড়
উৎসব রঙ মনে গেঁথে গেছে ক্লাবে ক্লাবে তোড়জোড় l
অসীম নীলিমা অনন্ত পথে গুলে দেয় খুশি রঙ
কাজ অবসানে দেউলে দেউলে ছুটির ঘন্টা ঢং l
মিলে মিশে সব একাকার হয়ে খুশি আনন্দে মাতে
পুজো এসে গেছে পুজো এসে গেছে থাকবো না ডালভাতে l


পুজোয় চাই :


পুজোর পোশাক পুজোর খাবার
বছর বছর আসুক আবার l
একেক দিনে একেক সাজ
পুজোয় সবাই পোশাকবাজ  !
পুজোর ক'দিন নতুন সাজে
শহর জুড়ে আড্ডাবাজে
সেজে সবাই ঘুরলো শহর
সাজপোশাকের জবর বহর !!
সঙ্গে খানা পাঁচতারাতে
ঠাকুর দেখে গভীর রাতে l
এই না হলে পুজো কিসে
সাজের চোটে হারায় দিশে !
নবমীটা বিদায় নিলে
সাজপোশাকে পড়বে ঢিলে l
আবার কাজে কর্মে মেতে
উপায় করে হবে খেতে l


পুজোয় কেমন :


পুজোয় কেমন ঘুরছি ফিরছি
খাচ্ছি নিজের ইচ্ছেমতো
সাজপোশাকে পরিপাটি
হঠাৎ ঢাকে পড়লো কাঠি l


বৃষ্টি তারও নেইকো বিরাম
ঝমঝমাঝম ঝরছে কেবল
ঢাকের বোলে ড্যাডাং ড্যাং
দীঘির জলে ডাকছে ব্যাঙ l


কোয়াক কোয়াক ব্যাঙের ডাকে
বর্ষাকালের আবহাওয়াতে
সমস্বরে উঠছে হাঁক
পুজোয় বৃষ্টি নিপাত যাক l


ঢাকের বোলে উঠলো ডাক
সবাই এসে প্রসাদ খাক l


হঠাৎ বৃষ্টি :


রোদ জ্বল জ্বল সকাল বেলায় হঠাৎ আকাশ কালো
ঝম ঝম ঝম বৃষ্টি ধারায় নিভলো দিনের আলো l  
বৃষ্টি ধারায় বিশাল ফোঁটায় ঝম ঝমা ঝম ঝম
ভিজলো সকল দর্শনার্থী ভিজে আলুর দম l
বৃষ্টিভয়ে পুজোর জোগাড় সাবধানে পা ফেলে
এটা হয় তো ওটা হয় না নাকাল সকল ছেলে l
যাহোক কোনো রকম করে জোগাড় একটা হলো
ষষ্ঠী থেকে আকাশ যেন হাসিতে চমকালো l
কিন্তু এ সপ্তমীর দিনে আবার হলো কি
পুজো এখন সবে শুরু ভুললে চলবে কি ?
এতো এতো আয়োজনের হবে দফা রফা
বৃষ্টি যদি এমনধারা পড়ে কয়েক দফা l
নতুন নতুন পোশাক পড়ে পুজোর সাজে সেজে
চলছে মানুষ পুজোর পথে উৎসাহে সতেজে l
ঘুরে ঘুরে দেখছে ঠাকুর পথে পথে কতো
খাচ্ছে পথে দোকান পেয়ে নিজের ইচ্ছেমতো l
এসব কিছুই পন্ড হবে অকালবৃষ্টি হলে
বৃষ্টি রে তুই যা না বাড়ি আসিস বর্ষা এলে l
বর্ষাকালে মাঠ ভিজাবি ফলবে নতুন ধান
কথা দিলাম তোকে নিয়ে লিখবো নতুন গান l


পুজোর এ ক'টা দিন :


মেঘ কেটে গিয়ে দেখো সোনা রোদ উঠেছে
শিউলি ফুলের গাছে থোকা ফুল ফুটেছে l
খোকাখুকু ছুটে ছুটে পূজামণ্ডপে যায়
কুমোর দাদাটা দেখো শেষ পোচ সামলায় l
পুজোর বাজারে সব মেতে গেছে এইবার
এটা কেনো সেটা কেনো দরদাম জোরদার l
পিসি এলো মাসি এলো আরো কতো আসবে
পুজোর এ ক'টা দিন হুল্লোড়ে কাটবে l
দিন যায় মাস যায় কাজ নিয়ে দূরে থাকে
পুজোর এ ক'টা দিন আনন্দ নেয় মেখে l
ঘোরা হবে খাওয়া হবে হবে নাচ গান কতো
মণ্ডপে মণ্ডপে ঠেলাঠেলি খাবে গুঁতো l
সপ্তমী অষ্টমী নবমীর দিনরাত
জেটগতি কেটে যাবে প্রতিদিন প্রতি রাত l
শরতের আকাশটা নির্মল থাকবে
পেঁজা সাদা মেঘগুলো সারারাত জাগবে l
পুজো সংখ্যার ভিড়ে পাঠকেরা যুঝবে  
বইপাড়া ঘুরে ঘুরে শারদীয়া খুঁজবে l
আলো ঝলমল পথে লাখো লোক হাঁটবে
সব শোক ভুলে গিয়ে শুধু খুশি বাঁটবে l


মেলা :


এক পা দু পা তিন পা করে চলছে মেলায় বুটুন
চলছে মেলায় পায়ে পায়ে সঙ্গে পোষ্য পুটুন l
পুটুন যে তার ছোট্ট ডগি নিত্য সাথে থাকে
পাড়ায় মেলায় সান্ধ্য পার্কে প্রতি পথের বাঁকে l
মেলায় চলে ছোট্ট বুটুন সঙ্গে বাবা মায়ে
সঙ্গে দিদি বন্ধু ক'জন লেপ্টে গায়ে গায়ে l
পুজোর মেলা দীঘির পাড়ে বিশাল আয়োজনে
চর্ব্য চোষ্য লেহ্য পেয় এবং প্রসাধনে l
খেলনাপাতি বাসনকোসন নিত্য প্রয়োজনের
রাইডে চড়ে হরেক রকম আজব আয়োজনের l
ভেলকিবাজি সাধুবাজি ভাগ্য মেলাও খেলা
বুটুন ঘোরে সারা মেলা ঘোরে সারা বেলা l
হঠাৎ মাইকে ঘোষক বলে দয়া করে শুনুন
একটি ছেলে খোয়া গেছে নামটি যে তার বুটুন l
বুটুন দেখে একলা যে সে মা বাবা নেই পাশে
বন্ধুরা সব তারাও হাওয়া পুটুন শুধু কাছে l
শব্দ ধরে বুটুন পুটুন সব পেয়েছির দেশে
দীঘির পাড়ে শীতল বাতাস মেলায় তাদের হেসে l
মেলা মানে হারাই মিলি চিন্তা খুশির দোলার  
সারা বছর হিসেবী মন মেলায় হিসাব ভোলার l


নকল :


কিনলো পুজোয় মস্ত দেখে দোনলা এক বন্দুক
খেলনা হলেও আকার প্রকার দেখে কাঁদে এ বুক l
নাছোড়বান্দা বুটুন সেটা আদায় করে ছাড়ে
বিবশ বাবা কি করে আর হাজার টাকা ঝাড়ে l
বন্দুকের যে রকম সকম গুড়ুম গুড়ুম গুলি
এ পাড়া আর ওপাড়াতে ছোটে ছেলেগুলি l
ছেলের দলে সেরা ছেলে বুটুন ছাড়া কে আর ?
বন্দুকটা তার সুনাম রাখে কারণ হাজার টাকার l
বাকিগুলো দু দশ টাকার এ হাত ও হাত চলে
হাজার টাকার বলে এটা এক হাতেতে খেলে l
সেই দোনলার গুলি ছোটে নদী পাহাড় বনে
আবার ছোটে পথে ঘাটে ক্ষণে প্রতিক্ষণে l
পুজোয় নতুন জামা জুতো এ সব কিছুর স্থানে
বুটুন এবার জেদ ধরেছে বন্দুকে মনপ্রাণে l
ভীষণ খুশি সেটা পেয়ে পেয়ে গেছে সকল  
ছেঁড়া জামা জুতোয় করে গব্বর শিং এর নকল l


আনন্দ নেয় গায়ে মেখে :


ছাদে এবং নিজ উঠানে
দিদি সবার মনকে টানে
অঞ্জলিটা দিতে যাবে
সেটা দিয়ে প্রসাদ খাবে l
পুজোয় ঘুরে ঠাকুর দেখে
আনন্দ নেয় গায়ে মেখে l
ঠাকুর দেখতে খুঁজে পায়
কোথায় আছে প্রাণের ভাই l
তারা কোথায় করছে কি যে
ছবি তোলে নিজে নিজে
হোয়াটস্যাপে পাঠায় ছবি
প্রাপক প্রেরক সবাই কবি  !


অশ্রু :


আজ নবমী তাই আকাশের মুখ ভার
বৃষ্টি তো নয় অশ্রুজল তা মা মেনকার l
বছরের দিন উমা মাতৃগৃহে এসে
সন্তান সহ থাকে সুখে ভালোবেসে l
সাথে থাকে বাহন যতো, মহিষাসুর
দেবীর পূজায় পূজা প্রাপ্তি সব দেবাসুর l
গিরিরাজও কন্যা অন্ত প্রাণ, তাই কাঁদে
নবমীর দিন গেলে কন্যা বিদায় ফাঁদে l
চারদিন সুখে, ষষ্ঠী থেকে যায় নবমী
সরস্বতী লক্ষ্মী কার্তিক নয় একদমই
খুশী তারা দশমীর এই বিদায় বেলায় l
কিন্তু বিধি ! খন্ডাবে কে তা ? নিরুপায় l
দশমীতে যাবার জোগাড় হলো শুরু
বিদায়ব্যথায় সজল মেঘের গুরু গুরু
তাই তো বৃষ্টি পড়ছে দেখো ঘন ঘন
কন্যা বিদায়, মায়ের ব্যথার অশ্রু যেন l


জয় দুর্গা মাই :


আজ দশমী
আজকে উমার বাড়ি ফেরার দিন,
হিমালয় পর্বতে আজ
মেনকার নাই কোনো কাজ
সকাল থেকে বিষন্নতা
মাথাতে ঝিন ঝিন l


ছেলেপুলে সঙ্গে নিয়ে
বাপের বাড়ি এই তো ক'টা দিন,  
হিমালয়ের খুশির পারা
বৃষ্টিরূপে অঝোর ধারা
সেই ধারাতেই দুঃখ ঝরে
বিদায়বেলায় দশমীর এই দিন l


সারা বছর দুঃখে সুখে
ভোলা শিবের ঘরণী সে
কৈলাশের ঐ পর্বতে তো
এই আছে এই নাই,  
চারটি দিনে মেয়েকে পেয়ে
আনন্দে যায় সময় বেয়ে
আসছে বছর আবার হবে
জয় দুর্গা মাই !!