এই যে আমি দাঁড়িয়ে আছি
ভিটে শূন্য মনের উপর
শুনবে তবে মনের কথা?
ভেতর বাড়ির হাড়ির খবর!


কি কারণে পূর্ণ এ মন
শূন্য হলো কোন সে খেলায়
এখন সময় যাচ্ছে কেটে
অহর্নিশি হেলায় হেলায়।


সবুর করো বলছি ভাইরে
বলি আগে ভূমিকাটি,
এখন সে তো দিব্যি হাসে
সিঁচ কাঁদুনে সেই মেয়েটি।


চুন থেকে পান খসলে কভূ
উঠতো ফুঁসে নাক মুখ ঘঁষে
হাতের কাছে পড়লে তবে
দুই এক ঘা দিতো কষে!


অভিমান আর আবদারে তার
রাতটি ভোর হয়েই যেতো,
উস্কানী দেয় বুকের মাঝে
হাজার রঙের স্বপ্ন যতো।


স্বপ্ন ছিলো আকাশ ছোঁয়ার
উড়বে সে আমায় নিয়ে,
নিন্দুকেরা যে যা বলুক
চলবে সবই পাশ কাটিয়ে।


সত্যি একদিন উড়াল দিলো
আমায় ফেলে একলা ঘরে,
উড়ছে আজো যায়রে দেখা
আসা যাওয়ার পথের ধারে।


এখন সে যে দূরের মানুষ
শূন্য করে মনের ভিটা,
পুড়িয়ে দিলো স্বপ্ন সবই
নেই বুঝি আর ছিটে ফোঁটা!


আমিও আমায় ভাসিয়ে দিলাম
শাসন করে মনকে আমার,
পুড়িয়ে দেবো সকল স্মৃতি
বুকের ভেতর দুঃখের পাহাড়।


আমিও আজই হাসবো তবে
তোমার মতো একলা একা,
আমিও তবে উড়বো দেখো
মানছিনা আর সীমারেখা।