যারে নিয়ে লেখা কবিতা আমার,
        যেন সে একটি জলজ নদী;
তোলপাড় করে দু'পাড় ভেঙ্গে
        অজানায় বহে দূর অবধি।


তার শরীরের ভাঁজে ভাঁজে জাগে
        বালিয়াড়ি মোহ, মুগ্ধকর!
এ জীবন যেন দুঃখের নদী,
        রাখে না কেউতো তার খবর।


অনন্তকাল ভালোবেসে যায়-
        বন্ধু কখনো, কভু সে মাতা;
ছায়দানকারী কখনো জীমূত,
        কখনো গাছের সবুজ পাতা।


কখনো ভগ্নি উদার প্রেমের,
        কখনো সুখের বারবনিতা,
কখনো জাগায় তীব্রদহনে
        প্রাণের গহীনে মরন-চিতা।


তার আশ্রমে কেটে যায় দিন,
        গঞ্জনা আর ভালোবাসায়;
এরই মাঝে সে সরল প্রেমের
        পরম পরশে সুখে ভাসায়।


স্বর্গ বালিকা, মোহমায়া নামে
        ধরণীতে এলে হাস্যোজ্জ্বল,
তোমার পরশে অহরহ ঝরে
        আকাশ ভাঙিয়া গোলাপজল।


২৩/১০/২০১৯
মিরপুর, ঢাকা।