কর্ম তোমার শাণিত ধারায় এঁকে যাবে যতো ছবি,
জানি, আমি জানি, হয়ে যাবে তুমি এই মানুষের কবি।
অব্যক্ত বেদনার মঞ্জরি ফোটাও যদিবা তুমি
বিশ্বলোকের মৃন্ময়তায় অনাবিল ফুলে ফুলে,
শ্রমমেধাঘামে ঢেলে দিয়ে যদি সাজাও মাতৃভূমি,
তোমারে স্মরিবে মানুষের প্রাণ, রেখে অন্তরমূলে।


স্বার্থের মোহ যাদের নয়নে জ্বলজ্বল করে জ্বলে,
লম্পট তারা চম্পট দেয় স্বার্থ ফুরিয়ে গেলে;
তারা তো কখনো কবিকে চেনে না জীবনের দোলাচলে
সম্মুখে থেকে হাসি হাসি মুখে চাতুরীর খেলা খেলে।


অজর সুরের গানের কবিতা লিখে গেছো তুমি, কবি!
চেতনার ঘরে ঝড় তুলে যায় বিহ্বল করা সুর;
তোমার মহিমা নদী হয়ে আজো বয়ে যায় নিরবধি
আমাদের মনে, তুমি যেন এক আলোর-সমুদ্দুর।
বঙ্গবন্ধু! রবে আমাদের আনন্দ উৎসবে,
যতোদিন মরমিয়া, ভাটিয়ালি এ বাংলাদেশে রবে।


অমর কাব্যের কবি তুমি হে, নিশানার পাঞ্জেরী,
আঁধার সরাতে কবিতা তোমার আমাদের জয় ভেরি।


১১/০২/২০২০
মিরপুর, ঢাকা।