বিন্দু
---
বিন্দু থেকেই শুরু,বিন্দু অবশেষে বৃত্ত হয়।
একেকটি বিন্দুকে ঘিরে থাকে
অজস্র সংযোগরেখা আরও অগণিত বিন্দুর।
কোথাও থাকে কান্না,কোথাও থাকে হাসি
কোথাও বাজে ঘর পালানো সুর।
কোথাও কোন এক ঘুঘু ডাকা ক্লান্ত দুপুরে
নিমীলিত নয়ন জুড়ে আসে ঘুমের জড়তা।
আবার কখনও বুকের ভেতর হু-হু করে
উদাস হাওয়া বয়ে যায়, লু হাওয়ার মতই।
কোন কোন বিন্দু থেকে উৎসারিত হয় আলো
সঞ্চারিত হয় বিন্দু থেকে অজস্র বিন্দুতে।
কোন কোন বিন্দু নিজেই নিকষ কালো
কি করে ছড়াবে আলো- কেবলই গাঢ় অন্ধকার।
কাছের পথে বিন্দু হারায় পথের দিশা যদি
হারায় অতল অন্ধকারে, সাথে থাকে কেবল গ্রহণ।
চন্দ্র বিমুখ ভাটার টানে সব খুঁজে পথ অন্ধকারে
বিধুমুখী কেবল লুকোয় চোখের জল কথার ছলে।
আলোর সাথে বিন্দু হাসে চোখে তখন অশ্রুকণা
জোয়ার ভাটার অবুঝ প্রেমে জোছনা হারায় দিশা।
বিন্দু তখন বিন্দু নয়,সিন্ধু হয়ে চলে পাগলপারা
সকল পথের সকল বিন্দু যে যার পথ খুঁজে নেয়।
কারও থাকে অশ্রু জমা,কারও থাকে বক্র হাসি,
কারও থাকে গভীর মায়া - কারও কেবল ছল।
বিন্দু হয় চন্দ্রতিলক যখন মিশে ভালোবাসায়,
বিন্দু করে তচনচ যখন ঘৃণা ঝরে আক্রোশে।
--১৯/০৯/২০১৯