খট খট খট
---
হাওরের দেশে
জলের বাসরে চন্দ্র নেমেছে,
খট খট খট
ঘোড়ার খুরের আওয়াজ শোনা যায়।
ধবল রাতে মৎস্যরাজ্যে উৎসব নামে,
ওরা অতন্দ্রায় মাতে, জলের রাজ্যে
উৎসবে মাতে।
খট খট খট
রহস্যময় অশ্বারোহী যায়
উৎকর্ণ ওরা,উৎকণ্ঠিত ওরা
রহস্যময় অশ্বারোহী ধায়।
নবীন যত ছিল ভীত প্রকম্পিত,
কেবল প্রবীণ হারাধন মাঝি ভাবলেশহীন
আনমনে হাল ধরে শক্ত হাতে,
বহুশ্রুত,জনশ্রুতি এক
বহুকাল ধরে অশ্বারোহীর চলাচল।
অব্যর্থ নিশানা ব্যর্থ হয়,
সম্মুখে নৃত্যরতা মৎস্যকুল,
আলোড়ন তোলে জলে
রাত যত গভীর,চাঁদ ততটাই কাছে চলে আসে।
শিরা-উপশিরায় হিম জমে,
কণ্ঠ শুকিয়ে কাঠ,
হাওরে নেমে আসে অদ্ভূত বিষন্নতা,
দূরের পানে দৃষ্টি রাখে
আশঙ্কায় কয়জোড়া চোখ।
আচমকাই হারাধন গান জুড়ে,
সুরের মোহন যাদুতে চরাচরে জাগে উন্মাতাল ঢেউ।
ধবল রাতে সুরের মায়া খেলা করে,
বাতাস নাচে অপরূপ ছন্দে,
খট খট খট
অশ্বারোহীর আওয়াজ শোনা যায়,
জলের শব্দে আটকে থাকে
জলজ লতাপাতা আর ছোট ডিঙি নাও।
প্রতিবারই একই পুনরাবৃত্তি,
থাকে শঙ্কা , থাকে হিমধরা আতঙ্ক,
থাকে নেশাতুর মানুষের নেশা,
জল যাদের ডেকে নিয়ে যায় জলের গভীরে।
ক্রমশ খট খট খট আওয়াজ মিলিয়ে যায়,
প্রাণ ফিরে আসে ছোট ডিঙি নায়ে,
টলমল ডিঙি,মাছেরা লাফায় ডিঙির আবদ্ধ জলে,
নির্ঘুম রাত্রি শেষে চাঁদ ফিরে যায়,
নির্ঘুম কিছু চোখে ঘুম নেমে আসে,
সূর্য ছড়ায় অপূর্ব মায়া হাওরের জলে,
অশ্বারোহী থেকে যায় মনে।
দুর্বার নেশা মানে না বারণ,
বার বার প্রতিবার ওরা ছুটে যায় জলে,
জলের রাজ্যে মাছেরা বাস করে,
কিছু মানুষের হৃদয়ে জল বাস করে,
তারা যায় জলবাসে,
অতন্দ্রায় অতীন্দ্রিয় কিছু সময়ের স্বাক্ষী হতে।
-১৮/১০/২০১৯