সঙ্ঘাত
*
মায়াবতী অরণ্য হারায় দূর আকাশে,
আর সমুদ্র!
সেও তো ঠাঁই দেয় নীল আকাশে
আপন বক্ষে,
কী অবলীলায় মিশে থাকা প্রগাঢ় বন্ধনে।
যখন নিশির শিশির ডাকে প্রদোষে,
ঝলমল স্বর্ণালী আভায়
দ্যুতি ছড়ায় আনন্দলোক,
অস্ফুট আড়ালে ফুলেদের বাসর
প্রমোদতরীতে অবগুণ্ঠিত অবগাহন।
জলেতে জ্বলে আলো
জোনাকি জ্বালায় আলো,
সন্ধ্যাতারা!
সেও তো সারথী হয় দিশাহীন নাবিকে!
শস্যদানায় প্রোথিত জীবনের বীজ,
প্রাণবায়ু থাকে সবুজ জমিনে
অঢেল শ্বাসে প্লাবিত সচল,
অগ্নিতে জ্বলে অকৃপণ আলো।
কোথায় কার্পণ্য বল!
অথচ তুমি আমি আপাত মধুর সম্ভাষণে
লুকিয়ে রাখি যাবতীয় অন্তর্দাহ,
তীব্র কলহে জটিল অন্তর্গত দ্বন্দ্ধ
কেবলই প্রকাশিত কলঙ্কিত
জীবনের সন্তাপ।
আমরা ক্রমাগত তলিয়ে যাই
জটিল চক্রাবর্তে,
আপাত শান্তিতে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলি,
সুখে যেতে চাই নিদ্রা।
অনিদ্র রাত্রি স্বাক্ষী হয়
অনিদ্রা যাপনের,
জটিল হৃদয় ক্ষরণে
কেবলই বাড়ে দুঃখময় কালের দৈর্ঘ্য।
--১৩/০৮/২০১৯