অবকাশ
খাতুনে জান্নাত
....................................


আপেল বা কোনও বলের মতো একটি ছায়া আমাকে নিয়ে লুফোলুফি খেলে।
আকাশে বিদ্যুৎ চমকে চলে গেলে
বাদামি বিকেল দাঁত কেলিয়ে হাসে!
পাহাড়ের স্তব্ধতায় জমা হয় মান অভিমান কালের ফসিল...


পা ফেলতেই মচমচ কচকচ
আমি ও আমার শব্দগুলো গুটিদানার মতো ঝরতে থাকি শিশিরের সাথে
রোয়া ওঠা উঠোনে খেলতে থাকে চাঁদের এক্কা দোক্কা।
স্বয়ম্ভর সময় হাতের মুঠোয় ধরতে ধরতে বাগিচায় জমে ঘাসপাতা,
সাগর উপকূলে বুলবুলের শোর ওঠে; কখনো আইলা...


বাবা বলেছিল, ‘ধৈর্যের দিঘি প্রশস্ত কর তবেই অবগাহন হবে।’
অপেক্ষার আকাশ দৈর্ঘ্য-প্রস্তে ব্যাপ্ত হয়
পৈঠা পার হয়ে তুমি-আমি পৌঁছে  যাই অবকাশের খেয়াঘাটে..