রাজার চিকিত্সা (রোগের লক্ষন)
৮ এপ্রিল, ২০১৪


হবুচন্দ্র রাজা আবার দেশে এলো ফিরে
রাজ্যকাজে মনোনিবেশ করলো ধীরে ধীরে|
ক’দিন পরে গবুচন্দ্র ভেবে যে হয় সারা
রাজার আগের মনটি যেন কোথায় গেছে হারা!
যা বলে তা করতে চায় এ কিরকম রাজা?
সত্যি কথা বললে তেমন পায়না কেউ আর সাজা!
এ কোন রাজা শুনতে যে চায় প্রজার দুখের কথা
প্রজার মঙ্গল করার শপথ নেয় যে যথাতথা
রাজার টাকায় গড়বে নাকি রাস্তা, বিদ্যালয়
আইন নাকি সবার তরে, ছোট বড় নয়|
সত্যি নাকি সত্যি কথা, মিথ্যা সত্যি নয়
সত্যি কথা বলতে নাকি নেইকো কারো ভয়|


অনেক ভেবে গবু শেষে মন্ত্রিসভা ডাকে
রাজার মতিভ্রমের কথা সবিনয়ে রাখে|
রাজাই কারা ঠিক করেছে যাদু কিবা মন্ত্র
নইলে কেন কথায় কথায় বলবে গণতন্ত্র?
প্রজার কাজে হচ্ছে খালি রাজার কোষাগার
এমনি করে কেমনে চলে রাজার এ কারবার?
মন্ত্রিসভা চিন্তামগ্ন, ক্লান্ত, বাক্যহীন
ভাবেনিক রাজ্যে কভু আসবে এ দুর্দিন|
রাজা যদি এমন ভাবে আর কিছুদিন চলে
এতদিনের স্বর্ণরাজ্য যাবে রসাতলে|
যে করে হোক একটা কিছু চাই এর সমাধান
নইলে কেন আছে রাজ্যে বৈদ্য ও বিদ্বান?


## পরের খন্ডে রাজার রোগ নির্ধারণ করা হবে|


(কবিগুরু বেঁচে থাকলে আজকের যুগের হবু আর গবুকে নিয়ে আরো কি  মজার কাব্য রচনা করতেন তা বলা  সম্ভব নয়| তবে হবু, গবু যে আর পৃথিবীতে নেয় এমন ভাবারও কোন কারন নেয়| তাই হবু গবুর কান্ড কারখানা আমাদেরই বলার চেস্টা করতে হবে, তা সে ভালো মন্দ যেভাবেই হোক|


হবু, গবুকে নিয়ে আমার প্রচেস্টা "রাজার চিকিত্সা" তিন খন্ডে প্রকাশ হব: রোগের লক্ষন (আজকের), রোগ নির্ধারণ, এবং চিকিত্সা (শেষ) |)