এখনো ঘুমিয়ে আমি? উদাসীন তায় ভুলি!
চারিদিকে লেগেছে ফাগুনের ধূলি।
আমার হৃদয় উদাস করে তুলি;
বিপিনের দ্রুমে কলকন্ঠের বুলি।


দুল্যোকে চাহিয়া অক্ষি;
এখনও কেন জাগিনি আমি?
গহনের দ্রুমে জবা,–দূরন্ত শিমুল উঠেছে জাগি; কেন এখনো ঘুমিয়ে আমি?


আবার এসেছে দক্ষিণা হাওয়া;
বিন্দু মোচনে জেগেছে পুলকের ছোয়া।
মনে লেগেছে প্রসূনের হাওয়া;
এ যেন বহু কাল পর-পাওয়া।


এমন আদৃত ঋতু থেকে যতোই লুকাই দৃষ্টি ;
ততোই  হৃদয়ে আনন্দের হিল্লোল করে সৃষ্টি।
বসন্ত কবির মতো রচে তার কাব্য বাণী;
যতদুর দৃক যায়,হাসি তার মুখখানি।


অবিকৃত পল্ববে, কুসুম-কলিতে;
বিটপির শাখায় কুঁড়ির-জুলিতে।
বুঝি আমিও হারিয়ে যাই তার রঙের তুলিতে;
একদা হয়ে যাবে একাকার কালবৈশাখীর ধূলিতে।