বাঙালি জাতি অলস জাতি মুখে চোটায় কথা,
কাজের বেলায় নাক ডগাতে তেল মালিশ মথা।
নিজ কাপড়ে ময়লা ভরা অপরে কয় সর,
চলতে দেখো ভাবের ব্যাটা ভাঙা বেড়ার ঘর।


হিংসা মনে সামনে চলে লাগায় খালি প্যাঁচ,
সুযোগ যদি কভুও ঘটে হয়তো উঁচন্যাচ।
কথা চোটায় অপর লোক তুচ্ছ খালি পায়,
কথার চোটে মারামারির উল্ট পড়ে গায়।


নিজের নামে সামনে পড়ে যদি সুনাম করে,
তার পিছনে থেতরা দিয়া উল্ট চেপে ধরে।
চালক নিজে বানায় সব প্যাঁচ বুদ্ধি নাকে,
ভালো বলবি আজই যারে ব্যাকাই পথ বাঁকে।


পরের নিয়া টানাটানির তামাশা আছে তাই,
রক্ত আছে জখম খেলা আপনে ঠাঁই নাই।
ভেলকি দহে একটি বারে যদিও লাগে খোঁচা,
ঘ্যাঁচ ঘ্যাঁচের সারা দিনের যায় না আর মোছা।


কাজের বেলা করতে গিয়ে হাজার মুখ বুলি,
অপর লোকের হঠতে দেখে হাতে খুশিই তুলি।
নিজের ঘরে চেরাক নাই পরের ঘরে পাম,
কথায় বলে চোটের দমা ইহার কতো দাম।


যতো আছেই যতোই লাগে গোগাই ভরা টান,
সুযোগ পেলে উঠা বসার পর ধরায় কান।
সামনে বলে আছি তোমার পিছনে বলে ঘুষ,
কালকে দেখি ভালো কথার হয়েই গেছে ঠুস।
টাকা থাকতে বন্ধু আছে করে ঠমক পোস,
বেঁচে থাকতে মায়া লাগেনা মরিলে আপসোস।