কবিতা লেখা কদিন হলো নাহ,
মন ভীষণ আমরা ভালো নাহ।
উদাশ করে নিল ভেতর চুরি,
ভবুক পিঠে আমি ঝিমিয়ে পরি।


মন খোরাকি আমার মিটে নাহ
টাটকা রস আমার চিবে নাহ।
খেয়াল পিঠে পায় দিলাম দৌড়,
দেখি আমার পথে অনেক মৌর।


হাত কলম আমার চলে নাহ
কেউ কিছুটা আমার বলে নাহ
আমার মনে চেরাক বাতি জ্বলা,
খালি লাগল আমার মন খলা।


আমার মাঠে আমার খেলে নাহ
ফুল পাখির পাপড়ি মেলে নাহ
লাগল কেনো নিজ অচেনা হায়,
কোন নিশান মন ঠিকানা গায়।


কেনো মনের অতো ছলনা ওকি
অবাক চোখে কেনো তাকিয়ে দেখি।
কোন গগনে কোন পথেরি তানা,
কে করিলেন লেখা আমার মানা।


ভাবনা গুলি কেমন এলোমেলো,
জানুন কিছু ঠাঁই বদলে গেলো।


কবিতা লেখা কেনো হয়না কভু,
কেনো এমন হলো করিনা সভু।
কবিতা লেখি মন খোরাক মানে,
স্বার্থ নাহি লেখার রসা টানে।


আমি কবি না কজন চেনে লোকে
মন খারাপ কেনো বলছি শোকে।
কবিতা যেনো মন ছোঁয়ায় কুলে,
সদ্য ফোটা পদ্য মুলে মুলে।


বিমুখ কথা মন পড়ছে খসে,
কবিতা লিখি তাতে না যায় আসে
কোথায় আছি কেমন বলে পাই
নিজের আমি কোথা ধাক্কা খাই।


আকাশ চলে নদের অবিরত,
আমি ভেঙেই চুরমারের মতো।
কেউ আসিয়া ফিরে দেখল নাহ
কারো মায়ার কভু ঠেকল নাহ।


সব চলেছে থেমে চলছে নাহ,
আমার মন বেশি ভালোই নাহ।


কবিতা লেখা কদিন হলো নাহ
মন ভারিল নব খেয়ালি আনা।
চেনা লাগছে দেখি অনেক চিনা
কোনো কিছুতে  ভেবে পাইতে ছিনা।


শুভাগমন আসল কেউ কিনা,
বলছি আমি তাহার হবু কিনা।
কোথায় মিল গড়ই মিলে নাহ
মন নিয়েছে কভু চিলে নাহ।


এর মাঝারে জমেছে কতো কিছু
বলা তাঁহার লেখা কঠিন ইসু।
নাকি নতুন কিছু ভাবছি কিনা,
তা ছাড়া কভু আমি পাইতে ছিনা।


চুপ থাকার থাকে অনেক মানে
বলব আমি নিজের কানে কানে।
নতুন ভাবে গড়ে উঠার পণ,
যদি দিতাম বসে একটু মন।
অগোছালোর বেলা সাড়াটি বেলা,
আমার মাঝে চলে ভাবন খেলা।
হয়তো,
এই চুপটি থাকার মনে আছে,
নতুন মন আমার ঘুরে গেছে।
নিশ্চুপতা আমার নব চোখ
তাকিয়ে ভাবি নব দুয়ার মুখ।
এই চুপির আছে অনেক রস,
নতুন ভাবে হাঁটি  মুছব কষ।
জানিনা, মন ভীষণ ভালো নাহ
নিজকে লাগে অচিন পুরি বাহ