অচিন একটি মানুষ আমার হলো কভু যার চেনা,
ভাবছি দূরের মানুষ সে লোক আপন ভাবিয়া নেনা।
মাস কাটে দিন গড়াল মাসেক দিনের উপরে দিন,
বন্ধু হবার জড়ালো কথার বাজছে অচিন বীন।
কাছের মানুষ দুরে ঠেলে দেই দূরের স্বপ্ন মাখি
কাছের মানুষ দুরের ভাবিয়া অন্ধ নয়ন ডাকি।
একটি বছর পার করে দেই চেনার কঠিন দায়,
যতো বলি মুখ দেখাও তোমার কার কথা কানে যায়।
কতো অভিমান কত মন টানে কতদিন গেল কেটে,
কতো সপন অবিরাম ঘুরে চলিল দু পায় হেঁটে।
কতো না বন্ধু জানালাম মুখে তা হরে কেউবা চেনে,
অনেক বন্ধু বলল বৃথাই ভারচুয়াল দৌড়া যেনে।
ফেজবুক বলে যার মুখ তার নাহি কোনো ছবি খানা,
না বলিলে কভু হিম সিম খাবি নাকচুকানির কানা।
আহরে জাগত দোষ নয় তার পাল্টেই গেল ছকস,
চিঠি পত্রের দুয়ার বন্ধ ডাক বিভাগের বক্স।
মিনিট ঘনিয়ো ব্লক মারিয়া হয় যায় বেমানান,
একটি মিনিট থাকার পরেই ভুলে যায় সেই গান।
হায়ের জীবন আবেগ মুছিল মুছিল চোখের মায়া,
চোখ আছে তার জল নাই চোখে জল পরে নাহি বায়া।
হঠাত একদা মেয়েটি আমর গেল কিনা যার পটে,
অচিন মেয়েটি জানতে চাইল কোথায় থাকার বটে।
আমার গায়ের সেই যেনো চির অচেনা একটি ফুল,
দেখা হলো নাহি ফিরে দেখা হলো জানা হলো নাই মুল।
অতো দিন ধরে ভারচুয়াল মিতা স্বপ্ন দেখার মতো,
যখনি চিনছি ভুলে যাব ভাবি না গেলে হবেই ক্ষতো।
অতোপর আমি অন্য লোকের খুঁজিতে গেলাম তাই,
তাকে নাহি পাই ভারচুয়াল চোখে আরেক কন্যা পাই।
কেটে গেলো মাস কেটে গেলো দিন কাটে বহুদিন ধরে,
চেনা হলো নাহি মুখ খানি তার অচিন মানুষ ওরে।
কাছের মানুষ দুরে থেকে রয় দুরের মানুষ কাছে,
আপন মানুষ থাকে অতি কাছে মিছেময় করে পাছে।
ইতিহাস হলো বিকৃত হলো কাছের মানুষ এ না,
কাছের মানুষ দুরের ভাবিছি হলো মন লেনা দেনা।
একদিন হলো কভু জানা জানি চিনে হই ডুবে বাক,
এই যদি চিনি কতো দামে কিনি বন্ধু নামের ডাক।