আমাগো বাড়ির উত্তুর পাশে ক্ষুদ্র একটি নদী,


ছোট্ট কাইলে নাইতাম আমি জোয়ার আইতো যদি।
বিয়াল বেলায় হেনর বেক্কে খেলতাম ফুটবল,


যেহানে আইজা নাইতো খেলার বন্ধুরপাঠ দল।
মাঝে আই আর সাঁতার কাটছি বেক্কে মিইলে খুব,


বাড়ি না কইয়া খেলাতম বেকে মিইল্লা হার ডুব।
ওপর ছিলোরে বিশালকা এক স্কুল জমিই ডগী,


মাঝে গিয়ে আমি বেরকা ভাতাম ছুইটে যাইতো লগি
ভাটার কালের  পানির লইতে তলায় দিতাম মগি

পড়ের পাশের দাড়াই দাড়াই দেহিতাম কানা বগি।
নদীর ওপর চাইয়া তো দেহি সকাল বেলার চাষি,


হারাদিনে কাম করেছে মাঠের পইরা দিবার নিশি।
বাদল দিনের বৃষ্টি ঝরার দেহছি আজব খেলা,


গ্রীষ্মকালীন রোদের খরার হাটল মাটির ঠেলা।
ফুলের মাসের  হলের মাসের দেহছি নানান রূপ,


হেথায় আমার চোখ লাইগতো এক্কালে খুব খুব।
হেনর নদীটি ছোট্টু ছিলো রে ছিলোর কাছের কাছ,


চাষা জেলেদের জাইঝালে যার ধরতো অনেক মাছ
এহানে নদীর পড়টি এহন অবাক খেয়াল পড়া।
৬+৬+৬/২