আমার একটি বন্ধু উপগীত পন্থা,
যতো বলি ঠিক কথা! ঢুকেনি মাথায়।
কোথায় সম্মান তাকি !কি ধুলিরসাথ।
সারা দিন চিন্তা ভরে! লিখে কি খাতায়।


এমন ব্যামোহ প্রীতি জুথ কামনায়
কথার নাই সামাল ইজ্জতের খুঁটি!!
আখ্যা প্রেম মিথ্যা পায় জীবন চড়ায়।
উপজীব্য বাকিটায় সব যশ মাটি।


প্রথম যেদিন দেখি কথা বলি তার!!
ওকি কতো ভাল ছিল বিনয় সুতায়।
কতো স্বপ্ন ডেকে ছিল মুখের বারন ।
হলুদাভা মুখ আহ শ্যামলিমা গায়।


এমন নিরেট পায় অসুখ সহিত,
অস্তিত্ব বাকিটা পথ মলিন ঢাকায়,
অধিক চেষ্টা করেছি এমন আত্নায়
এই পথ মিছা নাহি গুনপকা খায়।


দুষ্টেদের লক্ষ্য প্রেম সহপাঠে বন্ধু
নইলে তার জীবন ধংসর লিলায়,
কচি পাতা ঝর নিচে,আকালের ডাল
একমন ভাঙে যার শতটি ভাঙায়।


ওর ধ্যান খুব যেন ধ্রুব অসঙ্কোচ।
অখল চিত্তে কষ্টরা পাহারা বাঁধায়,
মিশুক চিত্ত ধোঁকার সহ্য নই হয়,
জিদ যেন ঢালে তার ইজ্জত লুটায়।


কপাল লিখন যদি আগে বর্ধধায়।
অনলে সকল সুখ জ্বলে পুড়ে যায়
যথায় বাস তথায় পায় চলে যায় ।
ইজ্জত রক্ষায় পুড়ে শ্রীর ললনায়।


নিস্তেজ এ ধোঁকা দেয় বেহুলা ঠাহর
বোঝেনা তার জীবন প্রেম জাগা হিয়া
সেই বোকা লোক ধ্রুব সিনেমা টাপিক
কথায় জয়ন্তি ভুত আটুশুটি দিয়া।


গুনিজন শুনি কথা আগাম নিকায়
সব লোক ভাই বন্ধু পন্থা সংযোজিত
তার আগে দিতে নাই হিয়ার দাখিল
এই জগতের লিলা কঠা হরদম ।


মনে আছে কিছু কথা চরম সত্তার
তেল জল তীল কিল ইজ্জত কোটায়
এক বার যদি পড়ে উঠানো না যায়।।
ধয্যর মজিলে হাত মাথা চুলকায়।


/কুলাঙ্গার/