দেখলেই মনে হয় যৌবন তার ফুরায় নায়,
আঠারো বছর তার টলমল দীপ্তি রণ বীর,
টলটলে উচ্ছ্বসিত নবতর জোয়ারই প্রাণ।
সুললিত মনবল শিক্ষা গুরু অমৃত সুধীর।


ছাত্র সুধী পাঠশালা শিক্ষক মতৈক মতম্মিন,
যুগ কাল বেঁধে গড়া অমলিন কৃতি স্মরণীয়,
সুমিত্রর সুমধুর পাঠ দান কন্ঠ মৈত্রী ক্ষেত্রি
অধ্যাপক  কায়সার আহমেদ দুলাল শ্রদ্ধেয়।


চিত্র আঁকে পথ মাঠে চাষিদের পথিকের ছবি,
তুলে ধরে মানবতার সভ্যতার দরদীর কবি,
সকলের মন জয়  মন ঠাঁই করে লহে তিনি,
জরাজীর্ণ পৃথিবীর চিরন্ত নক্ষত্র আলো রবি।


আপনার সংসারের মতো করা গড়া পাঠশালা,
তাহারই শৈরবীর বাসন্তীর ছোঁয়াছির ধরা,
কলেজ ক্যাম্পাস টাই স্বর্গ কুশলীর জ্ঞান পাঠ
হাসি মুখে পুষ্পফুটে আঙিনায় প্রান্তিকর চড়া।


পরিবেশ সাক্ষ্যতর চিরকাল রাখিবেন তারি
প্রকৃতির বন্ধুরতা মানুষ সহনশীলতা খানি,
চিরদিন দলিলতা অবিলম্বে ভাঙচুর নহে
এটা এক ইতিহাস দু সহস্র সাল অর্ক বানী।


দেখলেই মনে হয় দুর্বার তারুণ্য জয় জ্বলে,
যৌবন চিরন্তনীর বয়সের ফ্রেমেই বাধা নয়,
দেখলেই মনে হয় আসলে কখনো ভীত নয়,
বৃদ্ধতা সেইতো যার আঠারো বছরেও হয় ভয়।


দেখলেই মনে হয় আঠারো বছরে উর্ধে নয়,
তাজা রক্তিম লাভায় টকটকে লালচের বর্ণ
সবুজ নিশান তুলে নবীন ধার বাহক তার,
এখনো গরজে যুদ্ধ জাতির নেতৃত্ব তার কর্ণ।