মন শিহরে রূপসী ময়ি পেয়ে ছিলাম আমি
লাগত তাঁকে সবার চেয়ে খুবচে বেশি দামি।
কখন তাঁকে গোপন করে ডাকি আপন সুরে,
বন্ধু মোর অচিনপুরই চলে গিয়েছে দুরে।
কতো আপন নয়তো পর বে হিসেবেই গনা।
নয়তো বেশি হয়তো কম হৃদয় আলপনা।
হয়তো তাঁকে তিতা কথায় দিয়েছি দূর ঠেলে,
নিজের কাছে হঠাত্ করে ঠিক করিনি হেলে।


চাঁদের মতো রূপটা তার হলদে মাখা মুখ,
তাঁকে দেখলে স্বর্গ সুখে যেন ভাসায় বুক।
যদি তাহায় ভুলতে ওই অনেক দিন হবে,
এমন পাখি পাব আর কি কোনসে বন কবে।
বন্ধু সেই প্রেমিক পেলো করল এক মিতা,
বন্ধু তাঁকে ডাকে হিয়ার প্রেমের নিতু নিতা।
খোমটা পরে সানাই বেজে যাবে পরের বাড়ি,
চলে যাইবে সবই ছাড়ি খুবযে তাড়াতাড়ি।


নাকের ফুলে নাক জুলিবে কানে গহন দুল,
হয়তো গোপে মাথার কেশ বেনারশ্মি চুল।
হয়তো সেকি চিনবে নাহি হবে বঁধুর রূপ,
দূর থেকেই হাতের ছোঁয়া দেখব আমি খুব।
হাতের বালা চুড়ির মালা দেখব হাতে ভুরি,
পাশে দেখব আলতা পায়ে নুপুর বাজা ঝুরি।


হীরা সোনার দামের দামে থাকবে খুব সুখে
হাসির মুখে শশুর মামি নিবেই কোল বুকে।
গোলাপি ঘ্রাণ বাগিচা প্রাণ তাহার দেহ ছাপ,
ডঙের রঙে ফুটছে হাসি করেছে সে আলাপ।
তাহার শোকে নামবে বিষ ডুবে ভীষণ থাবা,
চোখের জলে মুখের থেকে পড়বে জল লাভা।


গহীন সুরে অনেক দুরে জমা পাথার জমা,
হঠাত্ করে টেউ সাগরে উঠবে খুব ধমা।
হয়তো কিছু অভিমানের ঠেকবে কিছু কথা
হয়তো ভুল নয়তো কুল কিছু বলবে যথা।