পুরুষের আরেক নাম পশু
মোজাম্মেল সুমন


পৃথিবী যেনো বেশ্যাখানার মতো বীর্য প্রপাত,
ধর্ষণের প্রতিধ্বনিতে ধর্ষিত হয় রাঙা প্রভাত।
নিজের ছেলের হাতে মাতা হচ্ছেন ধর্ষিতা,
বাবার হাতেও ধর্ষিতা হচ্ছে আপন দুহিতা।
আপন প্রিয় ভাইয়ের হাতে বোনটা ধর্ষণী,
চাচা মামার কাছেও ধর্ষিতা ভাস্তি ভাগনি।
নিষ্পাপ ফুলের মতো অবুঝ শিশুকেও ধরে,
সভ্যতাটাকে পাল্টে দেয় যোনি দু-ভাগ করে।
জ্ঞান গুরু শিক্ষকের শিক্ষাদান করা কাজ,
ছাত্রীকে ধর্ষণ করে আড়ালে রাখে সলাজ।
বন্ধুরা মিলে বান্ধবীকে ডেকে পড়ার নামে,
মনের ইচ্ছে মতো ধর্ষণ চলে পালাক্রমে।
কাজের মেয়েটি কাজ করে, অভাব আছে,
তাকেও ধর্ষিতা হতে হয় গৃহপ্রভুর কাছে।
এখন প্রতিবন্ধী মেয়েটিও ধর্ষিতা হয় সমাজে,
মানুষ নামের মানুষগুলো ভীষণ জঘন্য বাজে।
পথের ধারে নির্বোধ পাগলীও ধর্ষিতা হচ্ছে,
পশুর মতো স্বভাব মানুষেতে মিলে যাচ্ছে।
যখন তখন সংবাদ শুনছি করছি নেত্রপাত,
যেখানে সেখানে নারীর সম্ভ্রম লুটছে বজ্জাত।
ভালোই ছিলাম যখন ছিলাম ফুটফুটে শিশু,
এখন দেখছি পুরুষের আরেক নাম পশু।
পুরুষ তোরা মানুষ হ বিবেকের আলিঙ্গনে,
নারীকে শ্রদ্ধা করো প্রীতিপদ যোগ্য সম্মানে।