ভালোবেসে ভালোবাসি, অস্পর্শী
মোজাম্মেল সুমন


প্রভাতীর উন্মেষ-প্রিয় অংশবিশেষ
                তাতে,
সন্ধ্যাতীরে অলস-ক্রমান্বয়ে কল্পরস
                রাতে।


জীবন্ত  মুহূর্তগুলি-থাকে যে নিরিবিলি
                   ছুটতে,
কোষে কোষে সঞ্চার-অবিরাম পারাপার
                 পৌঁছতে।


প্রাণেরই প্রিয়সী-নেশাভরা রূপসী
                    তুমি,
অস্পর্শ ইঙ্গিত-শুনি সে সংগীত
                   আমি।


মন তো সচেতন-স্পর্শেই শিহরণ
               জাগায়,
লাগে ভীরু ভীরু-ভালোলাগা শুরু
              ইশারায়।


পাহাড়ী ছায়ায়-মনের গভীরতায়
                 স্বস্তি,
দেহের প্রতিটা কোষে-তুমি আছো মিশে
                  প্রাপ্তি।


ঐ স্বপ্নিল আকাশে-রবে তুমি পাশে
                 উড়বো,
হলে তুমি নীরবতা-যেনো লাজুকলতা
                 দেখবো।


কাশফুল শুভ্রতায়-তোমার ঐ মায়ায়
                 রোজ,
শিকায় রেখে তুলে-হঠাৎ যেনো ভুলে
                 খোঁজ।


দুষ্টুমির অভিমান-নীরবে সাড়াদান
               আমাকে,
নিত্য মনের নৃত্যে-পাই কথারই গীতে
               তোমাকে।


সুনয়না পরিপাটি-তীক্ষ্ণ যেনো দৃষ্টি
                 অপরূপ,
মনে লাগে দোলা-ভাবি যেনো একেলা
                 নিশ্চুপ।


তোমারই রূপে ডুবে-সুখেরই অনুভবে
                   গন্তব্য,
তোমায় অনেক বেশি-ভালোবাসি ভালোবাসি
                   মন্তব্য।


রেখেছি তোমায়-মনেরই চূড়ায়
               আমার,
আমি দু’চোখ বুজি-তোমাকে যে খুঁজি
              বারবার।


প্রেমের পূজোতে-প্রভাত সাঁঝেতে
                সঞ্চয়,
হয় না’ক বলা কভু-জানি জানো তবু
                নিশ্চয়।


নীরব উল্লাস-মনেরই বিশ্বাস
           বালিকার,
থাকবে যে জয়-রবে নাতো ভয়
           হারাবার।


চোখের ভাষায়-ডাকবে আমায়
             অহর্নিশি,
আর মিষ্টি কথায়-পাবে যে আমায়
              অস্পর্শী।


শূন্যতা ছাড়িয়ে-উদার সুহৃদয়ে
             তাকানো,
ছোট ছোট স্বপ্নে-থাকবো দু’জনে
              সাজানো।


ভালোবাসার কাছে-কষ্টরা যাবে মুছে
                বহুদূরে,
অনেক ভালোবাসা-দিবো এটাই আশা
               প্রাণভরে।


ভালোবাসার রাজ্যে-পরশি মেজাজে
               রবে,
আর্দ্র অনুভূতি-মধুময় বসতি
               হবে।


আমার পথ চলতে-তুমিই সুনিশ্চিন্তে
               মায়াবিনী,
জীবনসঙ্গী তুমি-আমার স্বপ্নভূমি
               হৃদয়রাণী।


হালকা খুশি-মায়াবী হাসি
            সোহাগ,
শান্ত স্বচ্ছ স্বভাবী-ভালোবাসার দেবী
             অনুরাগ।


ছোট আবদার-প্রেম বাড়াবার
             কৌশল,
হাসি খুশি মনে-প্রাণ যেনো টানে
              সরল।


তুমি আছো বলে-হৃদয়ে ঢেউ খেলে
                বহুরূপী-
আমি পাশে থাকলে-আসবে আমি ডাকলে
                চুপিচুপি।


শুদ্ধ ভালোবাসা-পরিতৃপ্ত প্রত্যাশা
              উপলব্ধি,
সুখেরই প্রেরণা-তুমিই যে রচনা
               প্রবৃদ্ধি।


কষ্টে বৃষ্টির ছাতা-মর্মস্পর্শী মমতা
                তোমার,
গ্রীষ্মের শীতলতা-একটু ছোঁয়াতে পূর্ণতা
                আমার।


শীতে উষ্ণ চাদর-তোমারই আদর
                 নিবো,
ভালোবাসার নীড়ে-দু’জনে জনম ভরে
                  রবো।


স্নিগ্ধতার ছায়া হয়ে-রবো তোমায় ছুঁয়ে
                 পাশাপাশি,
মনের আশা যতো-ভালোবাসা তুমিই তো
                 ভালোবাসি।