না পাওয়া
        নরেশ পাটঘরা


কেউ আমাকে গোলাপ দেয়নি বলে
বুকের মধ্যে গোলাপ গাছ পুঁতেছি যতনে ।
একদিন গোলাপ ফুটবে ভেবে
                          আনন্দ পাই !
আমার হ্রদয়ের সমস্ত রঙ নিয়ে
যে গোলাপ হবে সূর্যের চেয়েও রঙিন।


আমাকে যে স্বপ্ন দেখিয়ে ছিল
গোলাপের !
স্বপ্ন দেখিয়ে ছিল
বাবুই পাখির মত বাসা হবে ;
জোনাকিরা সারারাত আলো দেবে
ভোরবেলা গান শোনাবে
দোয়েল - কোয়েল - মুনিয়া ।


আজ সে নেই
কিন্তু তার কথাগুলো রয়ে গেছে
মনের গভীরে ।
এখনো মাঝে মাঝে অনুভব করি
তার বুকে মিস্টি গোলাপে গন্ধ !


বুকের প্রতিটি হলুদ পাতায়
যে স্বপ্নগুলো লেখা আছে !
তারা আজ আমার দিকে তাকিয়ে তাকিয়ে হাসে !
রাত গভীর হলে
হলুদ পাতা থেকে তারা সব বেরিয়ে পড়ে
চাঁদের বাগানে ঘুরবে বলে ।


আমার একটা যন্ত্রনা ছিল
নিজস্ব যন্ত্রণা
আমাকে কেউ চিনলোনা বোলে !
এখনো খুঁজি সেই হাত
যে আমার সমস্ত যন্ত্রনা
থেকে মুক্তি দেবে ।


এখনো শিশুর মত কাঁদি
তাই রাগ ,অনুরাগ ,অভিমান
ঝরে পড়ে প্রিয়জন কাছে এলে ।


হাতের মধ্যে কোনো হাত
জব্দ হয়নি বলে
নিজেই জব্দ হয়ে আছি
প্রেমহীন ধূষর মহাশশ্মানে ।