একটু একটু করে সঞ্চিত জলে
আড়ি দিয়ে সূর্যের সনে,
সায়র তোমায় নদীর জলেই ভরে
মিশে যাবো তোমা’ পরশনে।

দেখেছি তোমা’ বক্ষচেরা শুষ্ক রূপ
খাঁ খাঁ করে ঐ রুক্ষ বুক,
তোমার রুক্ষতা মুছে দিব জলে জলে
কেঁদে কেঁদে যদি হয় সুখ।

সাগর তোমায় কানায় কানায় ভরে
এক কোণে রবো পড়ে শেষে,
জল ফোটা মুক্ত হস্তে করে দান
বিষাদ ঘুচবো অবশেষে।

জলে ভরা মেঘ আমি বিষাদেই ভার
বেদনার জলে টলোমল,
সাগর তোমার বুক পাতো নাও জল
হেথা আঁখি জলে ছলোছল।

শুভ্রতা আমায়  আলিঙ্গন করে থাক
নীলাকাশে আমি শোভাময়,
বিষাদের জল সবই নিয়েই নাও
সাদা মেঘে আকাশে প্রণয়।

সেই বিরহীনি মেঘ আমিই হেথায়
বেদনায় ভার কালো মুখে,
আকাশের এপার ওপার কেঁদে মরি
গুমড়িয়ে গুমড়িয়ে দুখে।

আমার দুঃখই যদি হয় গো তোমা’
শূন্য বুকেরই পূর্ণতা ,
নাও তবে বুক পেতে এই আঁখি জল
মিটাও তোমার জীর্ণতা।
(৫ জুলাই ২০২৪)