যে মনকানা প্রেম বিরহ বোঝে না, সে কি বোঝে
পরাণ গহনে ফোটা কুমুদ কুসুমের কথা; কী করে জানবে সে
কত মরমি ইতিহাস তাতে রয়েছে গাঁথা?
কে বা তারে খুঁজে পায় ভালোবাসার আঙিনায়
ধরে না যে প্রসন্ন চিত্ত গহন পরাণের তলে?
অলকানন্দের পলক পরশ যে হৃদয়তন্ত্র যায় না ছুঁয়ে
তিয়াস মিটাতে সে কি দাহনের পরোয়া করে  
অন্তরই যার নেই তার কিছু আপন ঠিকানায়!


অপ্রেমবিদ্ধ মন নিয়ে ভালোবাসা যায় না
সংবেদী মেঘের মল্লার রাগ বাতাসের বুকে
শোনা যায় বটে নির্নিমেষ বায় অশ্রুত পাঠে
অপাপবিদ্ধ জলে আগুনের হুল - তা ও না ফোটে
জীবন যে একটাই - তারে ভাগ করা যায় না
আবেগের ছল-ছুতোয় প্রেম গড়ে উঠে না
একমুখী পথ-রেখার দুইমুখী গতিধারা -
গতায়াতে সেও কিছু তাল-শোভা পায় না।


মন প্রান্তরে ফুটে থাকা ভালোবাসার বুনোফুল
ফাগুন বিহনে মলয়ার রাগে পায় না সে সমাদর
অবুঝ ব্যথার নিলাজ ছবি এঁকে যায় তাই মনকোণ
গোলাপ প্রতাপে বিধু কালের অকালে নিভে
মধুপ সকাশে জন্মান্তরে না থাকে প্রেমের আশ
জলজ প্রপাতের প্রান্ত সীমানায় ছাতিম ছায়ার
হলে আয়ু ক্ষীণ, জোটে না প্রবাহের প্রণোদনা বুকে
নির্ঝরিনী ধারা, লুকায় প্রবল ঢাকতে মুখ।


প্রেমের বকুল মিলোক নাহয় বিফল মালাটি গাঁথায়
যাক না ঝরে যে যায় সরে কালের বিলীন খাতায়
স্মৃতি হয়েই বেঁচে থাকুক নির্মোহ ত্যাগ ও তৃষা
ভালোবাসা বেঁচে থাকুক নিগূঢ় আদিখ্যাতায়।


---------------------------------------------------


কৈফিয়ত:
কবিতা পাতায় যাতায়াত অনেক কমে গেছে। মাঝে মাঝে দু'একটা পোস্ট না দিলে কারোর আর মনেই থাকবে না যে, অনিরুদ্ধ বুলবুল নামের কেউ কখনো কবিতার নামে এই পাতায় মাঝে মাঝে আগাছা ছড়াতো। দুঃসময় কাটে না ঘোরও মুছে না, না ই বলি কথা কবিতার আলাপনে বন্ধুদের সনে, তবু বাসনা - জেগে থাকি আরো কিছু কাল কবি বন্ধুদের মনের জানালায়। সতত শুভেচ্ছা বন্ধুদের।